আমার স্বা’মী যদি মা’রা যায়, তাহলে আমি কাকে নিয়ে বাঁচব? তাই স্বা’মীকে কিডনি দিয়েছি। দুইজন একটি করে কিডনিতে, যতদিন আল্লাহ বাঁচায় রাখেন, ততদিন বেঁচে থাকব।’কথাগুলো বলেন ঝিনাইদহের হরিণাকুণ্ডু উপজে’লার হরিশপুর গ্রামের রাশিদুল ইসলামের স্ত্রী সেতু খাতুন।

হাসপাতালের বিছানায় এভাবেই স্বা’মীর প্রতি গভীর ভালোবাসার বহিঃপ্রকাশ করলেন এক স’ন্তানের এই জননী। প্রত্যন্ত অঞ্চলের এ না’রীর স্বা’মী রাশিদুলের দুটি কিডনিই সম্প্রতি ন’ষ্ট হয়। মৃ’ত্যুপথযাত্রী স্বা’মীকে বাঁচাতে নিজের একটি কিডনি দেন সেতু।

রাশিদুলের চাচাতো ভাই সবুজ হোসেন জানান, গত বৃহস্পতিবার রাজধানীর একটি হাসপাতালে তাদের অ’স্ত্রোপচার করা হয়। স্বা’মী, স্ত্রী উভ’য়ই সুস্থ আছেন। হরিণাকুণ্ডুর হরিশপুর গ্রামের রাশিদুরের স’ঙ্গে সাড়ে তিন বছর আগে পারিবারিকভাবে বিয়ে হয় কুষ্টিয়া সদর উপজে’লার হাতিভাঙ্গা গ্রামের সেতু খাতুনের।

ভালোবাসার সংসারে বিভীষিকা নেমে আসে তিন মাস আগে, যখন হঠাৎ অ’সুস্থ হয়ে পড়েন রাশিদুল। খুলনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পর চিকিৎসকরা জানান, তার দুটি কিডনিই বিকল হয়ে গেছে। কিডনি কেনার সামর্থ্য ছিল না মধ্যবিত্ত পরিবারটির। স্বা’মীকে বাঁচাতে তাই নিজের একটি কিডনি দেন সেতু।

সেতুর মা নুরনাহার বেগম বলেন, আমার মে’য়ে স্বা’মীর জন্য যা করেছে, তাতে আমরা খুশি। আমি সবার কাছে দুইজনের জন্যই দোয়া চাই।

মার স্বা’মী যদি মা’রা যায়, তাহলে আমি কাকে নিয়ে বাঁচব? তাই স্বা’মীকে কিডনি দিয়েছি। দুইজন একটি করে কিডনিতে, যতদিন আল্লাহ বাঁচায় রাখেন, ততদিন বেঁচে থাকব।’কথাগুলো বলেন ঝিনাইদহের হরিণাকুণ্ডু উপজে’লার হরিশপুর গ্রামের রাশিদুল ইসলামের স্ত্রী সেতু খাতুন।

হাসপাতালের বিছানায় এভাবেই স্বা’মীর প্রতি গভীর ভালোবাসার বহিঃপ্রকাশ করলেন এক স’ন্তানের এই জননী। প্রত্যন্ত অঞ্চলের এ না’রীর স্বা’মী রাশিদুলের দুটি কিডনিই সম্প্রতি ন’ষ্ট হয়। মৃ’ত্যুপথযাত্রী স্বা’মীকে বাঁচাতে নিজের একটি কিডনি দেন সেতু।

রাশিদুলের চাচাতো ভাই সবুজ হোসেন জানান, গত বৃহস্পতিবার রাজধানীর একটি হাসপাতালে তাদের অ’স্ত্রোপচার করা হয়। স্বা’মী, স্ত্রী উভ’য়ই সুস্থ আছেন। হরিণাকুণ্ডুর হরিশপুর গ্রামের রাশিদুরের স’ঙ্গে সাড়ে তিন বছর আগে পারিবারিকভাবে বিয়ে হয় কুষ্টিয়া সদর উপজে’লার হাতিভাঙ্গা গ্রামের সেতু খাতুনের।

ভালোবাসার সংসারে বিভীষিকা নেমে আসে তিন মাস আগে, যখন হঠাৎ অ’সুস্থ হয়ে পড়েন রাশিদুল। খুলনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পর চিকিৎসকরা জানান, তার দুটি কিডনিই বিকল হয়ে গেছে। কিডনি কেনার সামর্থ্য ছিল না মধ্যবিত্ত পরিবারটির। স্বা’মীকে বাঁচাতে তাই নিজের একটি কিডনি দেন সেতু।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here