আইসিইউতে নেওয়া হয়েছে ক্রিকেটার মোশাররফ রুবেলকে

শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় আইসিউইতে নেওয়া হয়েছে এক সময়ের জাতীয় দলের ক্রিকেটার মোশাররফ রুবেলকে। দীর্ঘদিন ধরেই অসুস্থ ছিলেন তিনি। ২০১৯ সালের মার্চে তার শরীরে ব্রেন টিউমার ধরা পড়ে।

এরপর চিকিৎসা নিয়ে মাঝখানে কিছুটা সুস্থ হয়ে উঠলেও গত জানুয়ারির শেষ সপ্তাহে এমআরআই করার পর দেখা যায়, পুরোনো টিউমারটি আবার নতুন করে বাড়ছে। তারপর থেকে আবার শুরু হয়েছে কেমোথেরাপি। টানা কেমোথেরাপির ফলে ইডিমা ও এপিলেপসিসে ভুগছিলেন তিনি।

সবশেষ শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটায় বুধবার সন্ধ্যায় তাকে আইসিউতে ভর্তি করানো হয়েছে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন এই ক্রিকেটারের স্ত্রী চৈতি ফারহানা নিজেই। কান্নাজড়িত কণ্ঠে স্বামীর জন্য সকলের কাছে দোয়াও চেয়েছেন তিনি।

রুবেল একসময় খেলেছেন বাংলাদেশ জাতীয় দলে। জাতীয় দল থেকে বাদ পড়লেও ঘরোয়া ক্রিকেটে তিনি ছিলেন শীর্ষস্থানীয় মুখ। ২০১৯ সালে ব্রেইন (মস্তিষ্কে) টিউমার ধরা পড়লে মাঠ থেকে ছিটকে পড়েন মোশাররফ রুবেল। মস্তিষ্কের মত স্পর্শকাতর স্থানে নতুন করে টিউমার ধরা পড়ায় শঙ্কায় পড়ে যায় রুবেলের জীবন।

জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে থাকা ৩৯ বছর বয়সী এই ক্রিকেটার সিঙ্গাপুরে চিকিৎসা নিয়ে আসার পর ক্রিকেটে ফেরার চেষ্টাও করেছিলেন। তবে আবারও টিউমার ধরা পড়লে থমকে যায় মাঠের পদচারণ। অস্ত্রোপচারের পর থেকে কথা বলেন ধীরগতিতে, থেমে থেমে। মাঝেমাঝে কথা জড়িয়ে যায়, অস্পষ্ট লাগে একসময়ের স্বল্পভাষী ও হাস্যজ্বল এই ক্রিকেটারের ভাষা।

শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় আইসিউইতে নেওয়া হয়েছে এক সময়ের জাতীয় দলের ক্রিকেটার মোশাররফ রুবেলকে। দীর্ঘদিন ধরেই অসুস্থ ছিলেন তিনি। ২০১৯ সালের মার্চে তার শরীরে ব্রেন টিউমার ধরা পড়ে।

এরপর চিকিৎসা নিয়ে মাঝখানে কিছুটা সুস্থ হয়ে উঠলেও গত জানুয়ারির শেষ সপ্তাহে এমআরআই করার পর দেখা যায়, পুরোনো টিউমারটি আবার নতুন করে বাড়ছে। তারপর থেকে আবার শুরু হয়েছে কেমোথেরাপি। টানা কেমোথেরাপির ফলে ইডিমা ও এপিলেপসিসে ভুগছিলেন তিনি।

সবশেষ শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটায় বুধবার সন্ধ্যায় তাকে আইসিউতে ভর্তি করানো হয়েছে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন এই ক্রিকেটারের স্ত্রী চৈতি ফারহানা নিজেই। কান্নাজড়িত কণ্ঠে স্বামীর জন্য সকলের কাছে দোয়াও চেয়েছেন তিনি।

রুবেল একসময় খেলেছেন বাংলাদেশ জাতীয় দলে। জাতীয় দল থেকে বাদ পড়লেও ঘরোয়া ক্রিকেটে তিনি ছিলেন শীর্ষস্থানীয় মুখ। ২০১৯ সালে ব্রেইন (মস্তিষ্কে) টিউমার ধরা পড়লে মাঠ থেকে ছিটকে পড়েন মোশাররফ রুবেল। মস্তিষ্কের মত স্পর্শকাতর স্থানে নতুন করে টিউমার ধরা পড়ায় শঙ্কায় পড়ে যায় রুবেলের জীবন।

জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে থাকা ৩৯ বছর বয়সী এই ক্রিকেটার সিঙ্গাপুরে চিকিৎসা নিয়ে আসার পর ক্রিকেটে ফেরার চেষ্টাও করেছিলেন। তবে আবারও টিউমার ধরা পড়লে থমকে যায় মাঠের পদচারণ। অস্ত্রোপচারের পর থেকে কথা বলেন ধীরগতিতে, থেমে থেমে। মাঝেমাঝে কথা জড়িয়ে যায়, অস্পষ্ট লাগে একসময়ের স্বল্পভাষী ও হাস্যজ্বল এই ক্রিকেটারের ভাষা।

About admin

Check Also

কুমিল্লায় কোরআন অবমাননা ঘটনা নিয়ে ধর্ম প্রতিমন্ত্রীর জরুরি ঘোষণা

কেউ আইন হাতে তুলে না নিতে এবং ধর্মীয় সম্প্রীতি ও শান্তিশৃঙ্খলা বজায় রাখার অনুরোধ করেছেন …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *