জামালপুর জেলা আওয়ামী লীগ থেকে বহিষ্কার হলেন মুরাদ

প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ পেয়ে মন্ত্রিসভা থেকে পদত্যাগ করেছেন তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসান। পদত্যাগপত্রে তিনি ব্যক্তিগত কারণ উল্লেখ করেছেন। আজ দুপুরে মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তার মাধ্যমে পদত্যাগপত্র জমা দেন তিনি।সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে বিতর্কিত মন্তব্য করে সমালোচনার মুখে পড়া ডা. মো. মুরাদ হাসানকে জামালপুর জেলা আওয়ামী লীগ থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

পদত্যাগের পর তার বিরুদ্ধে দলীয় ব্যবস্থা নিতে মঙ্গলবার (০৭ ডিসেম্বর) বিকালে জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে জরুরি বৈঠকে বসে জামালপুর জেলা আওয়ামী লীগের নেতারা। সভা শেষে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট বাকী বিল্লাহ মুরাদ হাসানকে বহিষ্কারের কথা জানান।

ডা. মুরাদ হাসান জেলা আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পাদক ছিলেন। তাকে দলীয় পদ থেকে অব্যাহতি দিয়ে কেন্দ্রে বহিষ্কারের সুপারিশ করার কথা ভাবছেন জেলা আওয়ামী লীগের নেতারা।জরুরি সভায় জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট বাকী বিল্লাহ ও সাধারণ সম্পাদক ফারুক আহমেদ চৌধুরীসহ শীর্ষ নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ পেয়ে মন্ত্রিসভা থেকে পদত্যাগ করেছেন তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসান। পদত্যাগপত্রে তিনি ব্যক্তিগত কারণ উল্লেখ করেছেন। আজ দুপুরে মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তার মাধ্যমে পদত্যাগপত্র জমা দেন তিনি।সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে বিতর্কিত মন্তব্য করে সমালোচনার মুখে পড়া ডা. মো. মুরাদ হাসানকে জামালপুর জেলা আওয়ামী লীগ থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

পদত্যাগের পর তার বিরুদ্ধে দলীয় ব্যবস্থা নিতে মঙ্গলবার (০৭ ডিসেম্বর) বিকালে জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে জরুরি বৈঠকে বসে জামালপুর জেলা আওয়ামী লীগের নেতারা। সভা শেষে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট বাকী বিল্লাহ মুরাদ হাসানকে বহিষ্কারের কথা জানান।

ডা. মুরাদ হাসান জেলা আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পাদক ছিলেন। তাকে দলীয় পদ থেকে অব্যাহতি দিয়ে কেন্দ্রে বহিষ্কারের সুপারিশ করার কথা ভাবছেন জেলা আওয়ামী লীগের নেতারা।জরুরি সভায় জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট বাকী বিল্লাহ ও সাধারণ সম্পাদক ফারুক আহমেদ চৌধুরীসহ শীর্ষ নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ পেয়ে মন্ত্রিসভা থেকে পদত্যাগ করেছেন তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসান। পদত্যাগপত্রে তিনি ব্যক্তিগত কারণ উল্লেখ করেছেন। আজ দুপুরে মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তার মাধ্যমে পদত্যাগপত্র জমা দেন তিনি।সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে বিতর্কিত মন্তব্য করে সমালোচনার মুখে পড়া ডা. মো. মুরাদ হাসানকে জামালপুর জেলা আওয়ামী লীগ থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

পদত্যাগের পর তার বিরুদ্ধে দলীয় ব্যবস্থা নিতে মঙ্গলবার (০৭ ডিসেম্বর) বিকালে জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে জরুরি বৈঠকে বসে জামালপুর জেলা আওয়ামী লীগের নেতারা। সভা শেষে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট বাকী বিল্লাহ মুরাদ হাসানকে বহিষ্কারের কথা জানান।

ডা. মুরাদ হাসান জেলা আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পাদক ছিলেন। তাকে দলীয় পদ থেকে অব্যাহতি দিয়ে কেন্দ্রে বহিষ্কারের সুপারিশ করার কথা ভাবছেন জেলা আওয়ামী লীগের নেতারা।জরুরি সভায় জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট বাকী বিল্লাহ ও সাধারণ সম্পাদক ফারুক আহমেদ চৌধুরীসহ শীর্ষ নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

About admin

Check Also

ছবিটি ভালো করে জুম করে দেখুন মেয়েটি কি করছে

ছবিটি জুম করে দেখুন- আজকাল কার দিনে সোশ্যাল মিডিয়ার চলন সব থেকে বেশী হচ্ছে । …

Leave a Reply

Your email address will not be published.