আপনার হাতে যদি ‘M’ চিহ্ন থাকে তাহলে জেনে নিন যা আছে আপনার ভা’গ্যে

আপনার হাতে যদি ‘M’ চিহ্ন থাকে তাহলে যা আছে ভাগ্যে – মানুষের হাত দিয়ে নাকি তার স’ম্পর্কে ত’থ্য পাওয়া যায়। এর মানে এই দাঁড়ালো যে আপনার হাতই বলে দেবে আপনি মানুষটা কেমন।আসলে হাত হচ্ছে আয়ানার মত। আপনি যেমন আপনার হাত ঠিক সেটাই দেখাবে।

জ্যোতিষীরা চেষ্টা করে মানুষের হাতের রেখা বিচার করে তার স’ম্পর্কে ভাল মন্দ বলে দেবার।আপনিও হয়তো কম বেশী হাতের বিভিন্ন রেখার নাম যেমন, হৃদয় রেখা, আয়ু রেখা, ভাগ্য রেখা ইত্যাদি। এত এত রেখার মাঝে আপনি কি কখনো নিজের হাতের তালুর মাঝে M এর মত করে রেখার সন্ধান পেয়েছেন?

এবার আমর’া হাত দেখেই মানুষ চিনতে পারবো তার হাফভাব জানতে পারবো যদি আপনার হাতে । M থাকে তাহলেই কেল্লোফতে! আপনার চিন্তায় কি এসেছে যে আমা’র হাতে M আছে নাকি যদি থাকে তাহলে আপনি স্পেশাল!

পুরু’ষের হাতে M থাকলে অত্যন্ত প্রতিশ্রুতিমান,জানবেন অত্যন্ত অনুভূ’তিপ্রবণ,চাকরি নয় যে কোনও উদ্যোগে সাফল্য পাবেন,মে’য়ে যদি প্রেমে পড়েন তবে স’ম্পর্কের ভবি’ষ্যত্‍‌ নিয়ে চিন্তা থাকে না!কাউকে প্র’তারিত করেন না তাই চোখ বন্ধ করে ভরসা করা যায়!

ম’হিলাদের হাতে যদি M থাকে তাহলে তিনি পুরু’ষের থেকেও ক্ষ’মতাশালী ‘’হতে পারেন!প্রে’মিকা দু জনের হাতেই M থাকে সেটা রাজযোটক তাহলেও সে ক্ষেত্রেও সাফল্যের দিক থেকে মে’য়েটিই এগিয়ে থাকবে! M থাকা ছেলে, মে’য়ে যে কোনও পরিস্থিতিতে নিজেকে সহজেই খাপ খাইয়ে নিতে পারেন!

সফল্যের জন্য নিজের মধ্যে প্রয়োজনীয় পরিবর্তনও এঁরা করতে পারেন!তাই M থকলে নিজের উপরে আস্থা রাখু’ন সাফল্য আপনার কাছে আসবেই! এমন যদি থেকেই থাকে, নিশ্চিত ভাবেই আপনি এক্সট্রাঅর্ডিনারি। এ কথাটি আমা’দের নয়, এমনটাই মনে করেন প্রখ্যাত জ্যোতিষীরা।

জ্যোতিষ শাস্ত্র মতে জ্যোতিষীরা মনে করেন যদি কোন পুরু’ষ মানুষের হাতে ছবিতে উল্লেখ করার মত করে M আকৃতির রেখা থাকে তাহলে সেই পুরু’ষ খুবই প্রতিশ্রুতিবান।এদের মধ্যে প্রচণ্ড অনুভূ’তি কাজ করে। যে কোন কাজে উদ্যোগ নেওয়া এবং সে কাজে সফল হওয়া যেন এদের সহজাত বৈশিষ্ট্য।

আপনাকে অংশীদার করে কেও ব্যবসায় করলেও তার জন্য লাভবান। আপনি যদি কোন মে’য়ে হন এবং এমন রেখার হাতের কোন পুরু’ষের সাথে আপনার স’ম্পর্ক থাকে তাহলে এ স’ম্পর্কের ভবি’ষ্যৎ নিয়ে দুশ্চিন্তা করা ছেড়ে দেন।

প্র’তারণা এদের শ’ত্রু তাই চোখ বন্ধ করে এদের কাঁধে মাথা রাখেন জীবনের বাকি সময়টুকুর জন্য।এ ধরনের পুরু’ষ কোন ভাবেই নিজের কাছের মানুষটির কাছে মিথ্যা বলেন না। প্র’তারণা করেন না। কোন কিছু থেকে পার পেতে অকারনে কোন প্রকারের অজুহাত দাড় করান না। যদি এই একই বি’ষয় কোন ম’হিলার হাতে থাকে তাহলে তিনি যে কোন পুরু’ষের থেকে অনেক অনেক বেশী ক্ষ’মতাশালী হয়ে থাকেন।

এমনও যদি হয় যে, প্রে’মিক প্রে’মিকার দুজনের হাতেই এমন সৌভাগ্যর রেখা M থেকে থাকে তাহলেও দেখা যায় যে মে’য়েটির ক্ষ’মতা ছেলেটির থেকে বেশী। M আকৃতির রেখা সহ যে কোন ছেলে মে’য়ে যে কোন সময় যে কোন পরিস্থিতিতে খুব সহজেই খাপ খাইয়ে চলতে পারে। যে কোন প্রকারের সাফল্য অর্জনের জন্য এরা যে কোন ভাবে নিজেদের মাঝে প্রয়োজনীয় পরিবর্তন ঘটাতে পারে।

About admin

Check Also

মেয়ের বয়স কম হওয়ায় বাসর ঘরে যাবার আগে স্বামীকে যা বললেন মেয়ের মা

বাংলাদেশের বেশিরভাগ মেয়েরই ১৮ বছর বয়স হওয়ার আগে বিয়ের জন্য চাপ দেওয়া হয়।রুনা আখতারের বয়স …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *