প্রতিশোধ নিতে সব কুকুর মেরে ফেলছে বানর

বানরের বাচ্চাকে মেরে ফেলেছিল কুকুরের দল। সেই হত্যার প্রতিশোধ নিতে ভারতের দুটি গ্রামে অন্তত আড়াই শ কুকুরকে মেরে ফেলেছে বানরের পাল। কুকুর-বানরের এমন শত্রুতায় আতঙ্কে আছে মহারাষ্ট্রের মাজালগাঁও ও লাভুল গ্রামের মানুষরা। খবর- ডেইলি মেইল।

ডেইলি মেইলের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, কুকুরগুলোকে ধরে প্রথমে বানরগুলো উঁচু ভবন কিংবা গাছের মগডালে নিয়ে যায়। পরে সেখান থেকেই ছুড়ে ফেলছে মাটিতে। সবচেয়ে ভয়াবহ অবস্থা লাভুল গ্রামে।

এই গ্রামে আর একটি কুকুর ছানাও অবশিষ্ট নেই। ভারতীয় বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশ করা একটি ভিডিওতেও দেখা গেছে নৃশংস এমন চিত্র। ভিডিওটিতে দেখা যায়, একটি কুকুর ছানাকে একটি ভবনের ছাদে নিয়ে যাচ্ছে একটি বানর!

আরেকটি ভিডিওতে দেখা গেছে, বানরের দলকে গ্রামের ভেতর দিয়ে তাড়া করছে ক্ষিপ্ত একদল কুকুর। এ সময় আশপাশে থাকা নারী ও শিশুরা নিরাপত্তার জন্য দিগ্বিদিক ছুটে পালাচ্ছে। বলা হচ্ছে, একটি অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনার সূত্র ধরে সেদিন থেকেই বানর আর কুকুরের মধ্যে এমন শত্রুতা তৈরি হয়েছে। কারণ একটি বানরের বাচ্চাকে মেরে ফেলেছিল কুকুরের দল।

বানর আর কুকুরের এমন যুদ্ধে আতঙ্কিত লাভুল গ্রামের বাসিন্দারা ইতিমধ্যেই বন বিভাগের কর্মকর্তাদের কাছে বিষয়টি জানিয়েছে। উগ্র বানরগুলোকে চিহ্নিত করে আটকের জন্য অনুরোধ করেছে তারা। কিন্তু বেশ কয়েকবার অভিযান চালিয়ে একটি বানরকেও আটক করতে পারেননি বন বিভাগের কর্মকর্তারা।

বন বিভাগের কর্মকর্তারা এই ঝামেলার মীমাংসা করতে না পারায় এখন গ্রামের বাসিন্দারাই অসহায় অবশিষ্ট কুকুরগুলোকে বাঁচানোর চেষ্টা করছে। কিন্তু এটি করতে গিয়ে ওই গ্রামের বাসিন্দারাই এখন বানরের শত্রু হয়ে যাচ্ছে। শুধু তা-ই নয়, কুকুরকে বাঁচাতে গিয়ে কয়েকজন আহতও হয়েছে।

এই গ্রামে আর একটি কুকুর ছানাও অবশিষ্ট নেই। ভারতীয় বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশ করা একটি ভিডিওতেও দেখা গেছে নৃশংস এমন চিত্র। ভিডিওটিতে দেখা যায়, একটি কুকুর ছানাকে একটি ভবনের ছাদে নিয়ে যাচ্ছে একটি বানর!

আরেকটি ভিডিওতে দেখা গেছে, বানরের দলকে গ্রামের ভেতর দিয়ে তাড়া করছে ক্ষিপ্ত একদল কুকুর। এ সময় আশপাশে থাকা নারী ও শিশুরা নিরাপত্তার জন্য দিগ্বিদিক ছুটে পালাচ্ছে। বলা হচ্ছে, একটি অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনার সূত্র ধরে সেদিন থেকেই বানর আর কুকুরের মধ্যে এমন শত্রুতা তৈরি হয়েছে। কারণ একটি বানরের বাচ্চাকে মেরে ফেলেছিল কুকুরের দল।

বানর আর কুকুরের এমন যুদ্ধে আতঙ্কিত লাভুল গ্রামের বাসিন্দারা ইতিমধ্যেই বন বিভাগের কর্মকর্তাদের কাছে বিষয়টি জানিয়েছে। উগ্র বানরগুলোকে চিহ্নিত করে আটকের জন্য অনুরোধ করেছে তারা। কিন্তু বেশ কয়েকবার অভিযান চালিয়ে একটি বানরকেও আটক করতে পারেননি বন বিভাগের কর্মকর্তারা।

বন বিভাগের কর্মকর্তারা এই ঝামেলার মীমাংসা করতে না পারায় এখন গ্রামের বাসিন্দারাই অসহায় অবশিষ্ট কুকুরগুলোকে বাঁচানোর চেষ্টা করছে। কিন্তু এটি করতে গিয়ে ওই গ্রামের বাসিন্দারাই এখন বানরের শত্রু হয়ে যাচ্ছে। শুধু তা-ই নয়, কুকুরকে বাঁচাতে গিয়ে কয়েকজন আহতও হয়েছে।

About admin

Check Also

বিশ্বখ্যাত কেমব্রিজ ইউনিভার্সিটিতে শিক্ষক হিসেবে যোগ দিলেন ডা. তাসনিম জারা!

কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্লিনিক্যাল সুপাইরভাইজার (আন্ডারগ্রাজুয়েট) হিসেবে যোগ দিয়েছেন বাংলাদেশের চিকিৎসক ডা. তাসনিম জারা।= গত সোমবার …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *