আল্লাহু আকবার, আল্লাহর কুদরতি ঘটনা, আল্লাহর কুদরত দেখুন

পৃথিবীর একক সৃষ্টা আল্লাহ তায়ালা। তিনি কোনো কিছু সৃষ্টির করার ইচ্ছা করলে কুন (হও) বলেন। অতঃপর সাথে সাথে তা হয়ে যায়। যেমন- আল্লাহর বাণী- তিনি যখন কোনো কিছু করতে ইচ্ছা করেন। তখন তাকে কেবল বলে দেন, ‘হও’ তখনই তা হয়ে যায়।

(সূরা ইয়াসিন-৮২) কিন্তু চারটি বস্তু আল্লাহ তায়ালা স্বীয় কুদরতের হস্তে সৃষ্টি করেছেন। হজরত আবদুল্লাহ ইবনে ওমর রা: থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন : আল্লাহ চারটি জিনিস নিজ কুদরতের হাতে সৃষ্টি করেন। অবশিষ্ট সৃষ্টি কুন বলার পর হয়ে গেছে। এ চারটি জিনিস হলো- কলম, জান্নাতে আদন, আরশ ও আদম আ:। (হাকেম- ৩৫৮, কুরতুবি ২০তম খণ্ড- পৃষ্ঠা ৯১)

কলম : আল্লাহর তায়ালা যে চারটি বস্তু নিজ কুদরতের হাতে সৃষ্টি করেন তার মধ্যে একটি হলো কলম। কলম শব্দটি আরবি, এক বচন। বহু বচন আকলাম। কুরআন মাজিদের ৬৮তম সূরার নাম সূরা কলম।

সূরা কলমও সূরা আলাকে কলম- এক বচন হিসেবে এবং সূরা লুকমান ও সূরা আলে ইমরানে আকলাম বহুবচন হিসেবে ব্যবহৃত হয়েছে। কলম হলো- লেখার উপকরণ। হজরত ওবাদা ইবনে সামেত রা: থেকে বর্ণিত, মহানবী সা: বলেন, সর্বপ্রথম আল্লাহ তায়ালা কলম সৃষ্টি করেন এবং তাকে লেখার আদেশ দেন।

কলম তখন আরজ করে, আমি কী লিখব? তখন আল্লাহ তায়ালা বলেন, সৃষ্টির তাকদির লিখ। আল্লাহর আদেশপ্রাপ্ত হয়ে কলম অনন্তকাল পর্যন্ত সম্ভাব্য সব ঘটনা ও অবস্থা লিপিবদ্ধ করে। সহিহ মুসলিম শরিফে হজরত আবদুল্লাহ ইবনে ওমর রা: থেকে বর্ণিত আছে, মহানবী সা: বলেন, আল্লাহ তায়ালা সমগ্র সৃষ্টির তাকদির আকাশ ও পৃথিবী সৃষ্টির পঞ্চাশ হাজার বছর আগে লিপিবদ্ধ করেন।

হজরত কাতাদাহ রা: বলেন, কলম আল্লাহ প্রদত্ত একটি বড় নিয়ামত। কোনো কোনো মনীষী বলেন, আল্লাহ তায়ালা সর্ব প্রথম তাকদির লিখার কলম সৃষ্টি করেন, তারপর মানুষের লিখার কলম সৃষ্টি করেন।

আল্লাহ তায়ালা বলেন, পড়–ন, আপনার প্রভু মহা দয়ালু। যিনি কলমের মাধ্যমে শিক্ষা দিয়েছেন। (সূরা আলাক : ৪ ও ৫)। হাতে কলমে শিক্ষাই চিরস্থায়ী হয়। মহানবী সা: বলেছেন, লিখার মাধ্যমে জ্ঞানকে আবদ্ধ করো।

(তিবরানি, তাফসিরে মুনির ১৫ খণ্ড, পৃষ্ঠা-৭০৬) সুতরাং লেখা হলো জ্ঞানকে চিরস্থায়ী রাখার মাধ্যম। হজরত ইবনে ওমর রা: বলেন, হে আল্লাহর রাসূল সা:! আমি আপনার যেসব হাদিস শুনি তা কি লিখব? রাসূল সা: বলেন, হ্যাঁ! লিখো। কেননা আল্লাহ তায়ালা বলেছেন, তিনি কলমের মাধ্যমে শিক্ষা দিয়েছেন (হাকেম পৃ. ৩৫৮)

About admin

Check Also

চলন্ত মাছকে ছুতেই মা,রা গেল কুমির। ভিডিও তুমুল ভাইরাল । (দেখুন ভিডিও)

কুমির, অ্যালিগেটর ও ঘড়িয়ালরা সাধারণ দৃ’ষ্টিতে একই রমক দেখতে হলেও,জীববিজ্ঞানের দৃ’ষ্টিতে এরা পৃথক বর্গের অ’ন্তর্গত। …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *