প্রশাসনের মধ্য থেকে গ্রিন সিগন্যাল পাওয়া গেছে: নুর

নতুন রাজনৈতিক দল গণঅধিকার পরিষদের সদস্য সচিব ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) সাবেক ভিপি নুরুল হক নুর বলেছেন, ‘প্রশাসনের মধ্য থেকে গ্রিন সিগন্যাল পাওয়া গেছে। তাদের মধ্যে এখন সরকারের পক্ষে বিপক্ষে দুই ভাগ হয়ে গেছে।

তারা আমাদের বলেছেন, ‘আপনারা রাস্তায় নামুন’। এই সরকারের এই ১২ বছরের মতো দুর্বল সময় আর ছিল না। এখন শুধু রাস্তায় নামতে পারলেই সরকারের পতন সম্ভব।’সোমবার (২৭ ডিসেম্বর) সন্ধ্যায় জাতীয় প্রেস ক্লাবের আব্দুস সালাম হলে

জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জেএসডি) আয়োজিত ‘জাতীয় সরকারের প্রস্তাবনা’ শীর্ষক অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।নুর বলেন, আজ একটা বিনা ভোটে নির্বাচিত সরকার ক্ষমতায় থাকা অবস্থায় স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী পালন করছি আমরা।

দেশে যারা জীবিত মুক্তিযোদ্ধা আছেন, তাদের জন্য এর চাইতে অসম্মানের আর কিছু নেই। আমাদের পয়সায় বেতন নিয়ে রাষ্ট্রীয় বাহিনী আমাদের ওপরই শুধুমাত্র প্রতিবাদ করার কারণে হামলা করবে, গুলি চালাবে, এটা তো গণতান্ত্রিক দেশের বৈশিষ্ট্য নয়।

নির্বাচন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, রাজনৈতিক বিশৃঙ্খলা আজ ইউনিয়ন নির্বাচন পর্যায়েও নিয়ে যাওয়া হয়েছে। সেখানেও রাজনীতি হচ্ছে, বিশৃঙ্খলা হচ্ছে। বিরোধী দলগুলো এখন সবাই একটি মতের ওপর ঐক্য আছে। তারা একটা নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন চায়।

অন্যদিকে ক্ষমতাসীন দলের পক্ষের দলগুলোও সব এক মতের ওপর ঐক্য আছে, যেকোনোভাবেই হোক, এই সরকারকেই ক্ষমতায় রাখতে হবে।অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন জেএসডির সভাপতি আ স ম আব্দুর রব, গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান

সমন্বয় জোনায়েদ সাকি,গণফোরামের সভাপতি মোস্তফা মহসিন মন্টু, বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক কমরেড সাইফুল হক, রাষ্ট্র সংস্কার আন্দোলনের আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট হাসনাত কাইয়ূম প্রমুখ।

জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জেএসডি) আয়োজিত ‘জাতীয় সরকারের প্রস্তাবনা’ শীর্ষক অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।নুর বলেন, আজ একটা বিনা ভোটে নির্বাচিত সরকার ক্ষমতায় থাকা অবস্থায় স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী পালন করছি আমরা।

দেশে যারা জীবিত মুক্তিযোদ্ধা আছেন, তাদের জন্য এর চাইতে অসম্মানের আর কিছু নেই। আমাদের পয়সায় বেতন নিয়ে রাষ্ট্রীয় বাহিনী আমাদের ওপরই শুধুমাত্র প্রতিবাদ করার কারণে হামলা করবে, গুলি চালাবে, এটা তো গণতান্ত্রিক দেশের বৈশিষ্ট্য নয়।

নির্বাচন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, রাজনৈতিক বিশৃঙ্খলা আজ ইউনিয়ন নির্বাচন পর্যায়েও নিয়ে যাওয়া হয়েছে। সেখানেও রাজনীতি হচ্ছে, বিশৃঙ্খলা হচ্ছে। বিরোধী দলগুলো এখন সবাই একটি মতের ওপর ঐক্য আছে। তারা একটা নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন চায়।

অন্যদিকে ক্ষমতাসীন দলের পক্ষের দলগুলোও সব এক মতের ওপর ঐক্য আছে, যেকোনোভাবেই হোক, এই সরকারকেই ক্ষমতায় রাখতে হবে।অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন জেএসডির সভাপতি আ স ম আব্দুর রব, গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান

সমন্বয় জোনায়েদ সাকি,গণফোরামের সভাপতি মোস্তফা মহসিন মন্টু, বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক কমরেড সাইফুল হক, রাষ্ট্র সংস্কার আন্দোলনের আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট হাসনাত কাইয়ূম প্রমুখ।

About admin

Check Also

‘তারেক রহমান লন্ডনে বসে হারিকেন ব্যবসা নিয়ে ব্যস্ত’: জয়

“তারেক রহমান লন্ডনে বসে হারিকেন ব্যবসা নিয়ে ব্যস্ত৷ হঠাৎ করে তারা হারিকেন নিয়ে খুব উদগ্রীব। …

Leave a Reply

Your email address will not be published.