লা’শ আসবে এফডিসিতে,পরিচালকরা গো’সল করাবে!

দেশের জনপ্রিয় সিনেমার নির্মাতা কাজী হায়াৎ আজ বৃহস্পতিবার ৩০ ডিসেম্বর পরিচালক সমিতির ৪০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে এফডিসিতে আসেন। এ সময় ৭৪ বছর বয়সী এই চি’ত্রপরি’চালক আ’বেগতা’ড়িত কণ্ঠে বলেন, ‘মারুফকে (ছেলে) বলেছি,

আমার লা’শ আসবে এফডিসিতে, পরিচালকরা গো’স’ল করাবে, দা’ফ’ন হবে নিজের গ্রামে।’ এদিকে ১৫ বছর আগে তার প্রথম ওপেন হার্ট’ সা’র্জারি হয়েছিল। বছর দুয়েক আগে আমেরিকায় ‘চিকি’ৎসা নিতে গিয়েছিলেন কাজী হায়াৎ।

মাঝখানে কিছুটা সু’স্থ হলেও বর্তমানে খুব ভালো নেই তিনি। গত সপ্তাহেও ‘হাসপা’তালে ভর্তি ছিলেন। তার হা’র্টে ৬টি রিং পরানো হয়েছে। এ প্রসঙ্গে কাজী হায়াৎ বলেন, ‘ঢাকার বড় একটি হাস’পাতা”লের ডাক্তা’র বলেছেন তাদের কিছুই করার নেই।

আল্লাহ ভরসা। কাজেই সবাই আমার জন্য দোয়া করবেন। যতদিন বাঁচব সিনেমার সঙ্গে থাকবো। এই সিনেমাই আজকে আমাকে কাজী হায়াৎ বানিয়েছে।’ এদিকে কাজী হায়াতের পরিচালনায় সর্বশেষ মু’ক্তিপ্রাপ্ত সিনেমা ‘বীর’। বর্তমানে সরকারী অনুদানে ‘জয় বাংলা’ নামে একটি সিনেমা পরিচালনা করছেন তিনি।

ঢাকাই সিনেমার সুপারস্টার শাকিব খানের চেয়ে নিজেকে জনপ্রিয় মনে করেন ‘ক্যা’বল ব্যবসা’ থেকে অভিনয়ে আসা হিরো আলম। তিনি বলেন, ‘দেশের যত মানুষ শাকিব খানকে চিনেন আমাকে তার চেয়ে বেশি মানুষ চিনেন। এছাড়া বিদেশেও আমার পরিচিতি রয়েছে।

শাকিব খান একচেটিয়া ইন্ডাস্ট্রিতে কাজ করে যাচ্ছেন। শাকিব খানকে টে’ক্কা দিয়ে ইন্ডাস্ট্রিতে নিজের অ’বস্থান তৈরি করতে চাই।’ হিরো আলম নিজের প্রযোজনায় নির্মাণ করেছেন চলচ্চিত্র ‘সাহ’সী হিরো আলম’। ছবির বিষয়ে আলম বলেন, ‘আমি সাহ’সী, কোনো কিছুতেই ভ’য় পাই না!

নিজের প্রযোজনায় সিনেমা নির্মাণ করছি। আমার বিপ’রী’তে তিনজন নায়িকা অভিনয় করবেন। আমার জীবনের গল্পের ছায়া অবলম্বনে সিনেমাটি নির্মাণ করা হয়েছে। এরই মধ্যে শুটিং শেষ। এখন ডাবিং করছি। আগামী নভেম্বরে সিনেমাটি মুক্তি দিব।

এই সিনেমার মাধ্যমে চিত্রনায়ক শাকিব খানকে টেক্কা দিতে চাই।’ আলম আরো বলেন, ‘যেহেতু আমার জনপ্রিয়তা রয়েছে। মানুষ আশা করতেই পারে। আমিও আশা করি- শাকিব খানের মতো আমারো একটা অবস্থান তৈরি হোক।’ রাজনৈতিক কর্ম’কাণ্ড প্রসঙ্গে হিরো আলম বলেন, ‘আমি আবারো নির্বাচন করব।

সেভাবেই প্রস্তুতি নিচ্ছি। অভিনয়ের পাশাপাশি রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড নিয়েও ব্যস্ত সময় কাটছে।’ ‘সাহসী হিরো আলম’ সিনেমায় তার বিপরীতে অভিনয় করেছেন সাকিরা মৌ, রাবিনা বৃষ্টি ও নুসরাত জাহান, আমির সিরাজী, তনু পাণ্ডে, রেহেনা জলি, নিরাঞ্জন গুলজার, কালা আজিজ প্রমুখ।

সিনেমাটি পরিচালনা করছেন এ আর মুকুল নেতৃবাদি। গল্প লিখেছেন পিজি মোস্তফা। চিত্রনাট্য করেছেন দেলোয়ার জাহান ঝন্টু। গাজীপুর, পুবাইল, রাঙ্গামাটি ও বান্দরবানের বিভিন্ন স্থানে সিনেমার শুটিং সম্পন্ন হয়েছে। প্রসঙ্গত,

হিরো আলমের ইউটিউবে আপলোড করা মিউজিক ভিডিও নিয়ে ২০১৬ সালের দিকে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম বিশেষ করে ফেসবুকে বাংলাদেশের ব্যবহারকারীরা ট্রল এবং মিম তৈরি শুরু করলে দ্রুতই তিনি পরিচিত হয়ে উঠেন। এসময় মুশফিকুর রহিমসহ আরো বেশ কয়েকজন বাংলাদেশী তারকা তার সাথে সেলফি তুলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রকাশ করেন।

এরপর বিবিসি হিন্দি, জি নিউজ, এনডিটিভি, ডেইলি ভাস্কর, মিড-ডেসহ ভারতের প্রথম সারির সংবাদমাধ্যমগুলো তাকে নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশ করে। ফলে তিনি ভারতীয় ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদের মাঝে আলোচিত হন। ইয়াহু ইন্ডিয়ার এক জরিপ অনুসারে সেসময় ভারতীয় অভিনেতা সালমান খানের চেয়ে আলমকে বেশিবার গুগলে অনু’সন্ধান করা হয়েছে। ২০১৮ খ্রিস্টাব্দের গুগল অনুসন্ধানের প্রবণতায় বাংলাদেশে দশম অবস্থানে থাকেন হিরো আলম।

About admin

Check Also

আনন্দের রেশ কাটতে না কাটতেই এবার মৌসুমীর ঘরে শোকের ছায়া

সপ্তাহ খানেক আগেই অর্থাৎ ২৬ তারিখ খুবই আনন্দের সাথে বাংলাদেশের চলচ্চিত্রের জনপ্রিয় জুটিমৌসুমী ও ওমর …

Leave a Reply

Your email address will not be published.