অবশেষে গোসল করানোর জন্য কেবিনে নেওয়া হয়েছিল খালেদা জিয়াকে

রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতালের সিসিইউতে চিকিৎসাধীন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে রোববার দুপুর পৌনে একটার দিকে ৪২১৯ নম্বর সিসিইউ বেড থেকে ৭২০৫ নম্বর কেবিনে নেওয়া হয়। তবে, খালেদা জিয়ার কোনো চিকিৎসক কিংবা তার প্রেস উইংয়ের কোনো সূত্র এ বিষয়টি নিশ্চিত করেনি। বাংলা নিউজ২৪

সূত্র জানায়, গত ১৩ নভেম্বর থেকে এভারকেয়ার হাসপাতালের সিসিইউতে চিকিৎসাধীন আছেন খালেদা জিয়া। এ সময় তাকে কেবিনে নেওয়া হয় গোসল করানোর জন্য। গোসল শেষে তাকে আবারও সিসিইউতে নেওয়া হয়। কারণ সিসিইউতে গোসল করার সুযোগ নেই।

২৮ নভেম্বর গুলশানের বাসায় সংবাদ সম্মেলনে খালেদা জিয়ার চিকিৎসক টিমের সদস্য এফএম সিদ্দিকী জানান, খালেদা জিয়া লিভার সিরোসিসে আক্রান্ত। বাংলাদেশের চিকিৎসায় তার পুরোপুরি সুস্থ হওয়ার কোনো সম্ভাবনা নেই। যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য অথবা জার্মানির এডভান্স ট্রিনমেন্ট সেন্টার চিকিৎসা দিলে তিনি সুস্থ হতে পারেন।

এজন্য খালেদা জিয়ার পরিবারের পক্ষ থেকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ে আবেদন করা হয়েছিল বিদেশে নেওয়ার জন্য। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সেই আবেদন পাঠায় আইন মন্ত্রণালয়ে। কিন্তু আইন মন্ত্রণালয় জানিয়েছে দিয়েছে তাকে বিদেশে নেওয়ার আইনি কোনো সুযোগ নেই।

রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতালের সিসিইউতে চিকিৎসাধীন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে রোববার দুপুর পৌনে একটার দিকে ৪২১৯ নম্বর সিসিইউ বেড থেকে ৭২০৫ নম্বর কেবিনে নেওয়া হয়। তবে, খালেদা জিয়ার কোনো চিকিৎসক কিংবা তার প্রেস উইংয়ের কোনো সূত্র এ বিষয়টি নিশ্চিত করেনি। বাংলা নিউজ২৪

সূত্র জানায়, গত ১৩ নভেম্বর থেকে এভারকেয়ার হাসপাতালের সিসিইউতে চিকিৎসাধীন আছেন খালেদা জিয়া। এ সময় তাকে কেবিনে নেওয়া হয় গোসল করানোর জন্য। গোসল শেষে তাকে আবারও সিসিইউতে নেওয়া হয়। কারণ সিসিইউতে গোসল করার সুযোগ নেই।

২৮ নভেম্বর গুলশানের বাসায় সংবাদ সম্মেলনে খালেদা জিয়ার চিকিৎসক টিমের সদস্য এফএম সিদ্দিকী জানান, খালেদা জিয়া লিভার সিরোসিসে আক্রান্ত। বাংলাদেশের চিকিৎসায় তার পুরোপুরি সুস্থ হওয়ার কোনো সম্ভাবনা নেই। যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য অথবা জার্মানির এডভান্স ট্রিনমেন্ট সেন্টার চিকিৎসা দিলে তিনি সুস্থ হতে পারেন।

এজন্য খালেদা জিয়ার পরিবারের পক্ষ থেকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ে আবেদন করা হয়েছিল বিদেশে নেওয়ার জন্য। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সেই আবেদন পাঠায় আইন মন্ত্রণালয়ে। কিন্তু আইন মন্ত্রণালয় জানিয়েছে দিয়েছে তাকে বিদেশে নেওয়ার আইনি কোনো সুযোগ নেই।

About admin

Check Also

অমিক্রনের হানা, রেড জোনে ঢাকা ও রাঙামটি

দেশে করোনাভাইরাসের ভ্যারিয়েন্ট ‘ওমিক্রন’ হানা দিতে শুরু করেছে। ইতোমধ্যে সরকার থেকে বিভিন্ন সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *