দোকান-শপিংমল খোলার সময় কমছে, লকডাউনের চিন্তাও আছে

করোনাভাইরাসের নতুন ধরন ‘ওমিক্রন’ মোকাবিলায় ফের বিধিনিষেধ আরোপ করতে যাচ্ছে সরকার। এ বিষয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেছেন, করোনা পরিস্থিতি খারাপ হলে লকডাউনের চিন্তা মাথায় আছে।

মঙ্গলবার (৪ জানুয়ারি) সচিবালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে মন্ত্রী এ কথা জানান। তিনি বলেন, অর্ধেক যাত্রী নিয়ে গণপরিবহন চলাচলের সিদ্ধান্ত আসছে। একই সঙ্গে কমছে দোকানপাট ও শপিংমল খোলা রাখার সময়।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘রোগী বেড়ে যাচ্ছে, যেভাবে বাড়ছে এটা আশঙ্কাজনক। এ নিয়ে কেবিনেটের সঙ্গে আলোচনা হয়েছে। বেশ কিছু পরামর্শ দেয়া হয়েছে। এগুলো এখনও ফাইনাল না।’ কেবিনেট থেকে কী কী প্রস্তাব এসেছে, এমন প্রশ্নে জাহিদ মালেক বলেন,

যানবাহনে মাস্ক ছাড়া চলাচল করা যাবে না, চললে জরিমানা দিতে হবে। যাত্রীর সংখ্যা অর্ধেক নেয়ার প্রস্তাব করা হয়েছে। রেস্টুরেন্টে মাস্ক পরে যেতে হবে। দোকানের সময়সীমা কমিয়ে আনার কথা বলা হয়েছে; রাত ১০টার পরিবর্তে ৮টা করার কথা বলা হয়েছে।’

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান প্রসঙ্গে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জানান, স্কুল বন্ধের পরিস্থিতি হয়নি। সংক্রমণ বেড়ে গেলে লকডাউনের চিন্তা আছে। ১৫ দিন পর এসব বিষয় বাস্তবায়নের কথা বলা হয়েছিল জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, আজ আমি প্রপোজ (প্রস্তাব) করেছি ১৫ দিন নয়, সাতদিন করার জন্য। সেটা মন্ত্রিপরিষদ সচিবকে বলা হয়েছে। তিনি এ বিষয়ে একমত পোষণ করেছেন।

করোনাভাইরাসের নতুন ধরন ‘ওমিক্রন’ মোকাবিলায় ফের বিধিনিষেধ আরোপ করতে যাচ্ছে সরকার। এ বিষয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেছেন, করোনা পরিস্থিতি খারাপ হলে লকডাউনের চিন্তা মাথায় আছে।

মঙ্গলবার (৪ জানুয়ারি) সচিবালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে মন্ত্রী এ কথা জানান। তিনি বলেন, অর্ধেক যাত্রী নিয়ে গণপরিবহন চলাচলের সিদ্ধান্ত আসছে। একই সঙ্গে কমছে দোকানপাট ও শপিংমল খোলা রাখার সময়।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘রোগী বেড়ে যাচ্ছে, যেভাবে বাড়ছে এটা আশঙ্কাজনক। এ নিয়ে কেবিনেটের সঙ্গে আলোচনা হয়েছে। বেশ কিছু পরামর্শ দেয়া হয়েছে। এগুলো এখনও ফাইনাল না।’ কেবিনেট থেকে কী কী প্রস্তাব এসেছে, এমন প্রশ্নে জাহিদ মালেক বলেন,

যানবাহনে মাস্ক ছাড়া চলাচল করা যাবে না, চললে জরিমানা দিতে হবে। যাত্রীর সংখ্যা অর্ধেক নেয়ার প্রস্তাব করা হয়েছে। রেস্টুরেন্টে মাস্ক পরে যেতে হবে। দোকানের সময়সীমা কমিয়ে আনার কথা বলা হয়েছে; রাত ১০টার পরিবর্তে ৮টা করার কথা বলা হয়েছে।’

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান প্রসঙ্গে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জানান, স্কুল বন্ধের পরিস্থিতি হয়নি। সংক্রমণ বেড়ে গেলে লকডাউনের চিন্তা আছে। ১৫ দিন পর এসব বিষয় বাস্তবায়নের কথা বলা হয়েছিল জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, আজ আমি প্রপোজ (প্রস্তাব) করেছি ১৫ দিন নয়, সাতদিন করার জন্য। সেটা মন্ত্রিপরিষদ সচিবকে বলা হয়েছে। তিনি এ বিষয়ে একমত পোষণ করেছেন।

About admin

Check Also

ট্রাফিক পুলিশের সঙ্গে বিদেশির ‘দুর্ব্যবহার’, ভিডিও ভাইরাল

রাজধানীর তেজগাঁও ট্রাফিক বিভাগের অধীন থাকা রাওয়া ক্লাবের সামনের রাস্তায় ট্রাফিক পুলিশের এক সদস্যকে লক্ষ্য …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *