সৌদি আরব থেকে ফিরে দেখেন বাড়িতে তালা, কোটি টাকা নিয়ে উধাও প্রবাসীর স্ত্রী

সৌদি আরব থেকে দেশে ফিরে এসে মো. ইমরুল লস্কর নামে এক প্রবাসী দেখেন গ্রামের বাড়ি তালা দিয়ে প্রায় কোটি টাকা নিয়ে উধাও স্ত্রী ফাতেমা বেগম। ঘটনাটি ঘটেছে নড়াইলের কালিয়া উপজেলার সালামাবাদ ইউনিয়নের বিলবাউস গ্রামে। মোহাম্মদ ইমরল লস্কর মৃ;ত ইয়ার আলী লস্করের ছেলে। স্ত্রী ফাতেমা বেগম একই গ্রামের হাসেম শেখের মেয়ে।

রোববার (৯ জানুয়ারি) ইমরুল লস্কর অভিযোগ করে বলেন, ‘সৌদিআরব থেকে আজ সকালে বাড়িতে এসে দেখি গেটে তালা দেওয়া। পাশে আমার শ্বশুরবাড়ি। সেখানে গিয়ে শ্বশুর হাসেম শেখ ও শাশুড়ি ভ্যাগা বেগমের কাছে স্ত্রীর কথা জানতে চাইলে তারা বলেন জানিনা কোথায় গেছে।’

ইমরুল আরও বলেন, ‘২০০২ সালে ফাতেমার সঙ্গে আমার বিয়ে হয়। ২০০৭ সালে আমি সৌদি আরবে যাই। সেখান থেকে আমি স্ত্রীর নামে দীর্ঘ ২০ বছরে ৯৭ লাখ টাকা পাঠাই। এছাড়াও আমার নামে বাড়ি করার জন্য গ্রামে ১৩ শতক জমি কিনতে বললে, সেটাও তার নামে রেজিস্ট্রি করেছে। আমি এখন নিঃস্ব হয়ে গেছি, আমি এর বিচার চাই।’

ইমরুল লস্করের এই অবস্থা দেখে প্রতিবেশীরা ফাতেমা বেগমের বিচার চেয়ে মানববন্ধন করেছে। মানববন্ধনে বক্তব্য দেন- মো. মুজিবর মোল্য, লিটন লস্কর, আব্বাস লস্কর, মনিরুল লস্কর, মিজানুর লস্কর, লাভলী বেগম, ফাতেমা বেগম, শারমিন সুলতানাসহ অনেকে।

প্রতিবেশী মুজিবর মোল্লা বলেন, ‘কয়েকদিন ধরেই বাড়ির বিল্ডিং ও সীমানা প্রাচীরের গেটে তালা দেওয়া দেখতে পাই। কালিয়ার চাদপুর গ্রামের বিদ্যুৎমিস্ত্রি কবিরের সঙ্গে ফাতেমারপ্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠেছিল। সম্ভবত সে তার কাছে চলে গেছে।’

ফাতেমা বেগমের বাবা হাসেম মোল্লা বলেন, ‘মেয়ে ফাতেমা কোথায় গেছে জানি না। তবে আমার জামাই ইমরুল তার নামে টাকা-পয়সা পাঠাতো ও বাড়ি করে দিয়েছে।’কালিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. কনি মিয়া শেখ বলেন, ‘লিখিত অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

রোববার (৯ জানুয়ারি) ইমরুল লস্কর অভিযোগ করে বলেন, ‘সৌদিআরব থেকে আজ সকালে বাড়িতে এসে দেখি গেটে তালা দেওয়া। পাশে আমার শ্বশুরবাড়ি। সেখানে গিয়ে শ্বশুর হাসেম শেখ ও শাশুড়ি ভ্যাগা বেগমের কাছে স্ত্রীর কথা জানতে চাইলে তারা বলেন জানিনা কোথায় গেছে।’

ইমরুল আরও বলেন, ‘২০০২ সালে ফাতেমার সঙ্গে আমার বিয়ে হয়। ২০০৭ সালে আমি সৌদি আরবে যাই। সেখান থেকে আমি স্ত্রীর নামে দীর্ঘ ২০ বছরে ৯৭ লাখ টাকা পাঠাই। এছাড়াও আমার নামে বাড়ি করার জন্য গ্রামে ১৩ শতক জমি কিনতে বললে, সেটাও তার নামে রেজিস্ট্রি করেছে। আমি এখন নিঃস্ব হয়ে গেছি, আমি এর বিচার চাই।’

ইমরুল লস্করের এই অবস্থা দেখে প্রতিবেশীরা ফাতেমা বেগমের বিচার চেয়ে মানববন্ধন করেছে। মানববন্ধনে বক্তব্য দেন- মো. মুজিবর মোল্য, লিটন লস্কর, আব্বাস লস্কর, মনিরুল লস্কর, মিজানুর লস্কর, লাভলী বেগম, ফাতেমা বেগম, শারমিন সুলতানাসহ অনেকে।

প্রতিবেশী মুজিবর মোল্লা বলেন, ‘কয়েকদিন ধরেই বাড়ির বিল্ডিং ও সীমানা প্রাচীরের গেটে তালা দেওয়া দেখতে পাই। কালিয়ার চাদপুর গ্রামের বিদ্যুৎমিস্ত্রি কবিরের সঙ্গে ফাতেমারপ্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠেছিল। সম্ভবত সে তার কাছে চলে গেছে।’

ফাতেমা বেগমের বাবা হাসেম মোল্লা বলেন, ‘মেয়ে ফাতেমা কোথায় গেছে জানি না। তবে আমার জামাই ইমরুল তার নামে টাকা-পয়সা পাঠাতো ও বাড়ি করে দিয়েছে।’কালিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. কনি মিয়া শেখ বলেন, ‘লিখিত অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

About admin

Check Also

অমিক্রনের হানা, রেড জোনে ঢাকা ও রাঙামটি

দেশে করোনাভাইরাসের ভ্যারিয়েন্ট ‘ওমিক্রন’ হানা দিতে শুরু করেছে। ইতোমধ্যে সরকার থেকে বিভিন্ন সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *