বিয়ের অনুষ্ঠানসহ সব জনসমাগম বন্ধ: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

করোনা নিয়ন্ত্রণে বিয়ে বা যেকোনো অনুষ্ঠান বন্ধ রাখতে হবে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। তিনি বলেন, করোনা সংক্রমণ যে হারে বাড়ছে তাকে আশঙ্কাজনক। আজ বৃহস্পতিবার (২০ জানুয়ারি) দুপুরে জেলা প্রশাসক সম্মেলনে ডিসিদের সঙ্গে স্বাস্থ্য ও পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অধিবেশন শেষে ব্রিফিংকালে তিনি সাংবাদিকদের এ কথা জানান।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, বিয়ে-শাদিসহ বিভিন্ন ধরনের অনুষ্ঠান, সামাজিক অনুষ্ঠান এখন বন্ধ রাখতে হবে। এ বিষয়গুলো আমরা তুলে ধরেছি। পাশাপাশি আমরা বলেছি, ল্যান্ডপোর্ট, সিপোর্ট, এয়ারপোর্টেও স্ক্রিনিং চলছে।

সেগুলো যাতে ঠিকমতো দেখেন ও যাতে সেখানে ফাঁকি না দেওয়া হয়। কোয়ারেন্টাইন বিষয়েও তাদের বলেছি। কোয়ারেন্টাইন অনেক সময় স্ল্যাক হয়। কোয়ারেন্টাইনে যারা আছেন অনেক সময় ফাঁকফোকর দিয়ে বের হয়ে যান এবং সংক্রামিত করে, এই বিষয়গুলো বলেছি আপনারা নজরদারিতে রাখবেন, যাতে কোয়ারেন্টাইন ঠিকমতো হয়।

তিনি বলেন, বর্তমানে করোনা পরিস্থিতির ঊর্ধ্বগতি আতঙ্কের কারণ। আপনারা (জেলা প্রশাসক) স্থানীয় পর্যায়ের কমিটির প্রতিনিধিত্ব করেন। স্থানীয় যারা জনপ্রতিনিধি রয়েছেন, তাদের সঙ্গে সমন্বয় করে কাজ করলে, কাজগুলো আরও সহজ হবে।

করোনা প্রতিরোধে বিভিন্ন সামগ্রী পর্যাপ্ত মজুদ রয়েছে উল্লেখ করে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, করোনার লাগাম টেনে ধরতে আমরা ১১ দফা বিধিনিষেধ আরোপ করেছি। এই বিধিনিষেধ বাস্তবায়নের মূল হাতিয়ার জেলা প্রশাসক। বাসে, ট্রেনে, লঞ্চে যাতায়াত করতে হলে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। মাস্ক পড়তে হবে। যতটা সম্ভব সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে চলতে হবে।

করোনা নিয়ন্ত্রণে বিয়ে বা যেকোনো অনুষ্ঠান বন্ধ রাখতে হবে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। তিনি বলেন, করোনা সংক্রমণ যে হারে বাড়ছে তাকে আশঙ্কাজনক। আজ বৃহস্পতিবার (২০ জানুয়ারি) দুপুরে জেলা প্রশাসক সম্মেলনে ডিসিদের সঙ্গে স্বাস্থ্য ও পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অধিবেশন শেষে ব্রিফিংকালে তিনি সাংবাদিকদের এ কথা জানান।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, বিয়ে-শাদিসহ বিভিন্ন ধরনের অনুষ্ঠান, সামাজিক অনুষ্ঠান এখন বন্ধ রাখতে হবে। এ বিষয়গুলো আমরা তুলে ধরেছি। পাশাপাশি আমরা বলেছি, ল্যান্ডপোর্ট, সিপোর্ট, এয়ারপোর্টেও স্ক্রিনিং চলছে।

সেগুলো যাতে ঠিকমতো দেখেন ও যাতে সেখানে ফাঁকি না দেওয়া হয়। কোয়ারেন্টাইন বিষয়েও তাদের বলেছি। কোয়ারেন্টাইন অনেক সময় স্ল্যাক হয়। কোয়ারেন্টাইনে যারা আছেন অনেক সময় ফাঁকফোকর দিয়ে বের হয়ে যান এবং সংক্রামিত করে, এই বিষয়গুলো বলেছি আপনারা নজরদারিতে রাখবেন, যাতে কোয়ারেন্টাইন ঠিকমতো হয়।

তিনি বলেন, বর্তমানে করোনা পরিস্থিতির ঊর্ধ্বগতি আতঙ্কের কারণ। আপনারা (জেলা প্রশাসক) স্থানীয় পর্যায়ের কমিটির প্রতিনিধিত্ব করেন। স্থানীয় যারা জনপ্রতিনিধি রয়েছেন, তাদের সঙ্গে সমন্বয় করে কাজ করলে, কাজগুলো আরও সহজ হবে।

করোনা প্রতিরোধে বিভিন্ন সামগ্রী পর্যাপ্ত মজুদ রয়েছে উল্লেখ করে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, করোনার লাগাম টেনে ধরতে আমরা ১১ দফা বিধিনিষেধ আরোপ করেছি। এই বিধিনিষেধ বাস্তবায়নের মূল হাতিয়ার জেলা প্রশাসক। বাসে, ট্রেনে, লঞ্চে যাতায়াত করতে হলে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। মাস্ক পড়তে হবে। যতটা সম্ভব সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে চলতে হবে।

About admin

Check Also

মারে কী জবাব দিবো, ভাইয়ের তো মেডিকেল করার ডেট ছিল’

মারে কী জবাব দিবো? ভাইয়ের তো মেডিকেল করার ডেট ছিল। আমি শেষ হইয়া গেলাম ভাই। …

Leave a Reply

Your email address will not be published.