চার যুগ অপেক্ষা, অবশেষে প্রথম সন্তানের মা হলেন ৭০ বছরের বৃদ্ধা

সাধারণত ৫০ বছর বয়সে অনেকে নাতি-নাতনিদের সঙ্গে সময় কাটান। আর ৭০ বছর হলে তো কথাই নেই। কিন্তু এ বয়সেই জন্ম দিয়েছেন প্রথম সন্তান।তবে সন্তানের মুখ দেখার অপেক্ষা প্রায় চার যুগের। অবশেষে প্রথম সন্তানের মা হলেন সেই ৭০ বছরের বৃদ্ধা। ঘটনাটি ভারতরে গুজরাটের। প্রায় এক মাস আগে গুজরাটের কুচ জেলার সন্তানের জন্ম দেন ওই নারী।

আইভিএফ প্রক্রিয়ায় গর্ভ ধারণ করেন তিনি। তবে ভুজ শহরের কাছে এ প্রক্রিয়া হয়ে ওঠে বিরাট চ্যালেঞ্জেরজিভুবেন বালাবাই রাবারি নামের ওই নারীর অদম্য ইচ্ছায় সফলতা পান তারা।

নিজের বয়স প্রমাণের কোনো নথি নেই মোরা গ্রামের বাসিন্দা জিভুবেন বালাবাই রাবারির। আইভিএফ প্রক্রিয়ায় সন্তান নিতে আগ্রহী হওয়ার কথা চিকিৎসকদের জানান তিনি।

তখন নিজের বয়স ৬৫ থেকে ৭০ বলে দাবি করেন। বিয়ের প্রায় ৪৫ বছরের মাথায় প্রথম সন্তান নিলেন ওই দম্পতি। চিকিৎসকেরা জানান, এ বয়সে সন্তান নেয়ার ঝুঁকি সম্পর্কে জিভুবেনকে বোঝান তারা।

তবে সন্তান পেতে মরিয়া ছিলেন তিনি। গাইনো কোলোজিস্ট ডা. নরেশ বানুশালি বলেন, আমরা প্রথমে ওষুধ দিয়ে তার মাসিক চক্র নিয়মিত করি।পরে বয়সের কারণে সরু হয়ে যাওয়া ইউট্রাস প্রসারিত করা হয়। পরে তার ডিম্বাণু নিষিক্ত করে ইউট্রাসে প্রতিস্থাপন করা হয়।

দুই সপ্তাহ পর সনোগ্রাফি করে অবাক হয়ে যান চিকিৎসকরা। স্বাভাবিক গতিতে বাড়তে থাকে নবজাতকের ভ্রুণটি। নির্দিষ্ট সময় পর তারা ভ্রুণের হার্টবিট শুনতে পান।জিভুবেন বালাবাই রাবারির বড় কোনো সমস্যা না থাকলেও বয়স জনিত জটিলতার কথা চিন্তা করে সিজারিয়ান অপারেশনের মাধ্যমে সন্তান জন্ম দেন তিনি। মা ও নবজাতক সুস্থ রয়েছেন।

নিজের বয়স প্রমাণের কোনো নথি নেই মোরা গ্রামের বাসিন্দা জিভুবেন বালাবাই রাবারির। আইভিএফ প্রক্রিয়ায় সন্তান নিতে আগ্রহী হওয়ার কথা চিকিৎসকদের জানান তিনি।

তখন নিজের বয়স ৬৫ থেকে ৭০ বলে দাবি করেন। বিয়ের প্রায় ৪৫ বছরের মাথায় প্রথম সন্তান নিলেন ওই দম্পতি। চিকিৎসকেরা জানান, এ বয়সে সন্তান নেয়ার ঝুঁকি সম্পর্কে জিভুবেনকে বোঝান তারা।

তবে সন্তান পেতে মরিয়া ছিলেন তিনি। গাইনো কোলোজিস্ট ডা. নরেশ বানুশালি বলেন, আমরা প্রথমে ওষুধ দিয়ে তার মাসিক চক্র নিয়মিত করি।পরে বয়সের কারণে সরু হয়ে যাওয়া ইউট্রাস প্রসারিত করা হয়। পরে তার ডিম্বাণু নিষিক্ত করে ইউট্রাসে প্রতিস্থাপন করা হয়।

দুই সপ্তাহ পর সনোগ্রাফি করে অবাক হয়ে যান চিকিৎসকরা। স্বাভাবিক গতিতে বাড়তে থাকে নবজাতকের ভ্রুণটি। নির্দিষ্ট সময় পর তারা ভ্রুণের হার্টবিট শুনতে পান।জিভুবেন বালাবাই রাবারির বড় কোনো সমস্যা না থাকলেও বয়স জনিত জটিলতার কথা চিন্তা করে সিজারিয়ান অপারেশনের মাধ্যমে সন্তান জন্ম দেন তিনি। মা ও নবজাতক সুস্থ রয়েছেন।

About admin

Check Also

বাংলাদেশে নিরাপদ সড়কের দাবিতে শ্রাবন্তী

প্রতিদিন সড়কে ঝরে যাচ্ছে একাধিক প্রাণ। এ নিয়ে বিভিন্ন সময় বিক্ষোভ হলেও সময় গড়াতেই এসব …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *