জেনে নিন, সপ্তাহে কতবার সহবাস করা স্বাস্থ্যের জন্য উপকার!

সপ্তাহে কতবার সে’ক্স করা উচিত? রোজ, একদিন অন্তর নাকি শুধুমাত্র সপ্তাহ শেষে? সম্প্রতি আমেরিকান জার্নাল অফ কার্ডিওলজি তে প্রকাশ হয়েছে একটি আ’র্টিকেল।

সেখান থেকে জা’না যাচ্ছে যে সব পুরুষেরা সপ্তাহে দুবার সে’ক্স করেছেন তাঁদের হা’র্ট যারা একবারও সে’ক্স করেন নি তাদের থেকে অনেকটা ভালো। তাই কা’র্ডিওভাসকুলার ডি’জিজ রুখতে পু’রুষদের সক্রিয় সে’ক্স লা’ইফ থাকা উচিত।

অ’র্গাজমের সময় অ’ক্সিটোসিন হরমোন উদ্দীপীত হয়। এর ফলে আপনার র’ক্তচাপ কম থাকে। আর আমরা সবাই জানি উচ্চ র’ক্তচাপ হা’র্টের জন্য কতটা ভ’য়ঙ্কর। এছাড়াও স্ট্রে’সের মধ্যে থা’কলে হার্ট অ্যা’টাকের সম্ভবনা অনেকটা বেড়ে যায়।

আর আমরা সবাই জানি সে’ক্সের থেকে ভালো স্ট্রে’সবাস্টার আর কিছুই হতে পারে না। এছাড়াও নিয়মিত যৌ’ন স’ম্ভোগ করলে আ’পনার ওজনও কমবে। এছাড়াও সে’ক্সের পর ঘুমও ভালো হয়। ফলে আপনার হা’র্ট ভালো থাকবে।

আ স্টাডি ইন বায়োলজিকাল সা’ইকোলজি থেকে জানা গেছে যাঁরা নিয়মিত মি’লিত হন তাদের ব্লা’ড প্রেসার ক’ন্ট্রোলে থাকে। ফলে এই ব্যক্তিদের হৃদয় সং’ক্রান্ত রো’গের সম্ভবনা অনেকটা কম থাকে।

তাই সপ্তাহে অন্তত দু‘বার করে অ’বশ্যই আপনার পা’র্টনারের সঙ্গে মি’লিত হন।আরও পড়ুন: স্ত’ন বড় হলে স’হবাসে যে সমস্যা গুলো হয়? প্রশ্ন: আমি শুনেছি ভা’রী স্ত’ন হলে নানান রকমের শারীরিক ‘অসুবিধা দেখা দেয়।

ব্যাপারটা কি সঠিক? আর যাদের স্ত’ন ভারী, বিয়ের পর কি তাঁদের কোন সমস্যা হয়? *আপনার প্রশ্ন বেশ কয়েকটি, তাই ক’য়েকটি ধাপে দেয়া হলো জবাব। ভারী স্ত’নের ব্যাপারটি জি’নের ওপরে নির্ভর করে, এবং আমাদের দেশের না’রীদের স্ত’ন স্বাভাবিক ভাবেই পশ্চিমা দেশের মেয়েদের তুলনায় ভা’রী হয়ে থাকে।

অনেক না’রীরই বিয়ের আগে স্ত’ন অতিরিক্ত ভা’রী হতে পারে। এবং এই স্ত’ন নিয়ে বিয়ের আগে, পরে কিংবা বেশি বয়সে- সবক্ষেত্রেই দেখা দিতে পারে নানান রকম সমস্যা। এই সমস্যাগুলো দেয়া হলো নিচে।

*বেশি ভা’রী স্ত’নের জন্য পিঠে ব্যথা হওয়া খুব স্বাভাবিক। আজকাল অনেক না’রীই প্লা’স্টিক সার্জারির মাধ্যমে স্ত’ন বড় করান। এতে তাঁদের মে’রুদণ্ডে তথা পিঠে ব্যথা হওয়ার সম্ভাবনা বেড়ে যায় ব’হুগুণে।

*একটা নির্দিষ্ট বয়সের পর স্বা’ভাবিকভাবেই না’রীদের স্ত’ন ঝুলে যেতে থাকে। বেশি বড় স্ত’ন হলে খুব বাজে ভা’বে শেপ নষ্ট হয়ে যায় স্ত’নের, যা শত চেষ্টা করেও ফিরিয়ে আনা যায় না।

*তরুণী বয়’সেই বেশি ভারী স্ত’ন হলে নি’র্দিষ্ট বয়সের আগেই স্ত’নের আ’কৃতি নষ্ট হয়ে যায়। *বেশি ভারী স্ত’নে অনেক ক্ষেত্রেই আ’কৃতি সু’ডৌল হয় না, ত্বকে টাইট ভাব থাকে না। ফলে সৌন্দর্য হা’নি হয়।–

বেশি ভা’রী স্ত’নের কারণে কাঁ’ধে ব্যথা হতে পারে। *স’ন্তান হবার পর স্ত’নের আ’কৃতি বৃদ্ধি পায়। কম বয়সে বেশি ভারী স্ত’ন হলে সন্তান জন্মের পর স্ত’ন খুব বেশি বড় হয়ে যায় যা দৃ’ষ্টিকটু লাগে ও নানানরকম সম’স্যা তৈরি করে।

ভা’রী স্ত’নে মো’টামুটি এই সমস্যা গুলোই হয়। তবে শা’রীরিক সমস্যা ছাড়াও হতে পারে কিছু সম্প’র্কগত সমস্যা। যেমন, স্ত’নের সু’ডৌল ভাব নিয়ে স্বা’মীর আ’পত্তি থাকতে পারে। বা তিনি মনে করতে পারেন যে আপনার বি’বাহ বহির্ভূত শা’রীরিক সম্পর্ক ছিল।

About admin

Check Also

রা’তে ৯ বার, স’কালে না দে’ওয়ায় যু’বকের কা’ণ্ড

সারা রাতভর অ’বৈধ মেলামেশার পর প’র’কীয়া প্রে’মিক দুই শেষ ফেলার উদ্দেশ্যে রাস্তার পাশে ফে’লে দিয়ে …

Leave a Reply

Your email address will not be published.