সন্তান জন্ম দিতে গিয়ে মারা গেছেন মা, মা হারা বাচ্চা কোলে নিয়ে শিক্ষকতা করছেন বাবা

একজন স’ন্তানের মা এবং পিতা উ’ভয়ের প্রয়োজন হয়। কিন্তু কিছু কিছু মানুষ থাকে তারা সন্তানদের জন্য কোনো দায়িত্বই পালন করতে চায় না। আজ আমরা আপনদের এমন একজন ব্য’ক্তির কথা বলতে যাচ্ছি যিনি বাবা হি’সেবেই নয় বরং মা হিসেবেও সমস্ত দায়িত্ব পালন করেন।

বিখ্যাত আইএএস অফিসার অ’বিনাশ শরণ টুইটার অ্যাকাউন্টে একটি ছবি শেয়ার করেছেন যা মানুষের পছন্দ হয়েছে। অ:বিনাশ বলেছেন যে একজন ব্যক্তি আ’ছেন যার স্ত্রী সন্তান জন্ম দিতে গিয়ে মারা যান এবং তারপর তিনি একা হয়ে যান।

একা থাকার কারণে তা’দের স’ন্তানদের সমস্ত দায়িত্ব তার উপর এসে পড়ে। তার জায়গায় অন্য কেউ হলে হয়তো দ্বি’তীয়বার বিয়ে করতেন বা বাচ্চাদের দে’খাশোনা করার জন্য কাউকে রাখতেন।

কিন্তু তিনি তা করার কথা ভাবেন নি বরং ছেলেকে কোলে নিয়েই তিনি কলেজে প’ড়াতে যান। তিনি কলেজের ছেলে মে’য়েদের ক্লাস ভালোভাবে নেন এবং তিনি নিজের সন্তানকে কোলে নেওয়ার পাশাপাশি তার যত্নও রাখেন।

এর কারণে ক’লেজের ছাত্র-ছা’ত্রীরাও তাকে খুব সম্মান করে। এই মানুষটি একজন ভালো বাবা এবং একজন ভালো শিক্ষক। অনেকেই এমন কঠিন প’রিস্থিতিতে এসে হাল ছেড়ে দেন বা অন্য কোন পথ অবলম্বন করেন।

কিন্তু তিনি না অন্য কোন পথ অ’বলম্বন করেছেন না হাল ছেড়েছেন তিনি বাবা হিসেবে নিজের সমস্ত দায়িত্ব পালন করার পাশাপাশি মা হি’সেবেও সমস্ত দায়িত্ব পালন করেছেন।পাশাপাশি তিনি একজন শি’ক্ষক হওয়ার দায়িত্বও খুব সুন্দরভাবে পালন করেছেন। সমাজের এরকম শিক্ষক এবং বাবাদের কুর্নিশ জানাই।।

একজন স’ন্তানের মা এবং পিতা উ’ভয়ের প্রয়োজন হয়। কিন্তু কিছু কিছু মানুষ থাকে তারা সন্তানদের জন্য কোনো দায়িত্বই পালন করতে চায় না। আজ আমরা আপনদের এমন একজন ব্য’ক্তির কথা বলতে যাচ্ছি যিনি বাবা হি’সেবেই নয় বরং মা হিসেবেও সমস্ত দায়িত্ব পালন করেন।

বিখ্যাত আইএএস অফিসার অ’বিনাশ শরণ টুইটার অ্যাকাউন্টে একটি ছবি শেয়ার করেছেন যা মানুষের পছন্দ হয়েছে। অ:বিনাশ বলেছেন যে একজন ব্যক্তি আ’ছেন যার স্ত্রী সন্তান জন্ম দিতে গিয়ে মারা যান এবং তারপর তিনি একা হয়ে যান।

একা থাকার কারণে তা’দের স’ন্তানদের সমস্ত দায়িত্ব তার উপর এসে পড়ে। তার জায়গায় অন্য কেউ হলে হয়তো দ্বি’তীয়বার বিয়ে করতেন বা বাচ্চাদের দে’খাশোনা করার জন্য কাউকে রাখতেন।

কিন্তু তিনি তা করার কথা ভাবেন নি বরং ছেলেকে কোলে নিয়েই তিনি কলেজে প’ড়াতে যান। তিনি কলেজের ছেলে মে’য়েদের ক্লাস ভালোভাবে নেন এবং তিনি নিজের সন্তানকে কোলে নেওয়ার পাশাপাশি তার যত্নও রাখেন।

এর কারণে ক’লেজের ছাত্র-ছা’ত্রীরাও তাকে খুব সম্মান করে। এই মানুষটি একজন ভালো বাবা এবং একজন ভালো শিক্ষক। অনেকেই এমন কঠিন প’রিস্থিতিতে এসে হাল ছেড়ে দেন বা অন্য কোন পথ অবলম্বন করেন।

কিন্তু তিনি না অন্য কোন পথ অ’বলম্বন করেছেন না হাল ছেড়েছেন তিনি বাবা হিসেবে নিজের সমস্ত দায়িত্ব পালন করার পাশাপাশি মা হি’সেবেও সমস্ত দায়িত্ব পালন করেছেন।পাশাপাশি তিনি একজন শি’ক্ষক হওয়ার দায়িত্বও খুব সুন্দরভাবে পালন করেছেন। সমাজের এরকম শিক্ষক এবং বাবাদের কুর্নিশ জানাই।।

About admin

Check Also

গণকমিশনের অভিযোগের কোনো ভিত্তি নেই: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, ১১৬ জনকে ধর্ম ব্যবসায়ী আখ্যা দিয়ে ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির …

Leave a Reply

Your email address will not be published.