খোলা চুল, সবুজ শাড়িতে তুমুল নাচ নেচে তাক লাগাল সুন্দরী যুবতী, তুমুল ভাইরাল ভিডিও

বর্তমানে পৃথিবীর খবর জানার জন্য একমাত্র মাধ্যম হলো সোশ্যাল মিডিয়া।পৃথিবীর নানা অদ্ভুত আশ্চর্য ঘটনাবলী আম’রা সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে দেখতে পারি ও জানতে পারি।

এমনকি সোশ্যাল মিডিয়াকে কাজে লাগিয়ে অনেক মানুষ তার সুপ্ত প্রতিভা কে বিশ্বের সামনে আনার সুযোগ পান। আমা’দের দেশে এমন অনেক প্রতিভা আছে, যারা উপযুক্ত সুযোগের অভাবে সুপ্তই থেকে যান, কিন্তু আজকাল সোশ্যাল মিডিয়া সেই অসুবিধা দূর করেছে।

আজকাল সোশ্যাল কিশোর কিশোরী ও যুবক যুবতীদের প্রাধান্য বেশি। নাচ গান প্রভৃতি ভিডিওর সাথে সাথে নানারকম অদ্ভুত ঘটনাও ভাইরাল হতে দেখা যায়, যা দেখে আম’রা সত্যিই অবাক হয়ে যাই।

তবে বর্তমানে সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হওয়ার জন্য অনেকেই অনেক খারাপ পথ বেছে নিচ্ছেন। বিশেষ করে কিছু কিছু মানুষথেকে কুখ্যাত হওয়ার দিকেই ঠেলে দিয়েছে বেশি।

সম্প্রতি ভাইরাল একটি ভিডিওতে দেখা গেছিল, একটি যুবতী মেয়ে বলিউডি গানে টপ এবং শর্টস পরে ডান্স করছে। কিন্তু তার সাথে রয়েছে এক বৃদ্ধ মানুষ, কিন্তু মেয়েটির বৃদ্ধর গায়ে গা লাগিয়ে এবং পা দিয়ে অত্যন্ত অশ্লীলভাবে ভিডিও করে পোস্ট করেছে সোশ্যাল মিডিয়ায়।

মেয়েটির প্রতিভা থাকলেও তার খারাপ ব্যক্তি সোশ্যাল মিডিয়ায় বেশি ফুটে উঠেছে। সম্প্রতি ভাইরাল হলো একটি ভিডিও। ভিডিওটিতে দেখা যাচ্ছে, ভারতবর্ষের জনপ্রিয় সংগীতশিল্পী অল্কা ইয়াগ্নিক এর গাওয়া “মে সাজধাজ কে কব তাক কারু ইন্তেজার” গানটিতে পারফর্ম করেছে একটি কিশোরী মেয়ে। মেয়েটির পরনে রয়েছে সবুজ শাড়ি। গানের তালে তালে নিখুঁতভাবে নেচে মেয়েটি মাতিয়ে দিয়েছে দর্শকের মন।

যদিও তার শাড়ি পরা নিয়ে কটাক্ষ করেছেন অনেকেই, অনেকের মতে তিনি নাচের থেকে অঙ্গ প্রদর্শনীর উপরে লক্ষ্য রেখেছেন বেশি। যদিও এসব কথায় কান না দিয়ে যুবতী তার পোস্টটি শেয়ার করে দিয়েছেন চারদিকে। ভিডিওটি চারিদিকে হয়ে গেছে ভাইরাল। ভিডিওটি পোস্ট করা হয়েছে মিরা’ নামে একটি অফিশিয়াল ফেসবুক পেজ থেকে। হাজার হাজার মানুষ ভিডিওটি লাইক করেছে।

মেয়েটির রূপ সৌন্দর্য ও প্রতিভার প্রশংসায় পঞ্চমুখ সবাই। কিন্তু মেয়েটির শাড়ি পরা নিয়ে নিন্দা উঠেছে চারিদিকে, দর্শকদের মতে প্রতিভা থাকলে তবেই বিখ্যাত হওয়া সম্ভব।

যদিও মেয়েটির পারফরম্যান্স মুগ্ধ করেছে সবাইকে। সোশ্যাল মিডিয়ার ভালো খারাপ দুই দিকই রয়েছে। মানুষ কিভাবে ব্যবহার করবে তার উপরে নির্ভর করে সোশ্যাল মিডিয়ায় উপকারিতা ও অপকারিতা এখানে

এই ভিডিওটিতে মহিলা ও বৃদ্ধ সোশ্যাল মিডিয়ার খারাপ দিকটি ব্যবহার করেছে তাই এখানে নেগেটিভ প্রভাব সবচেয়ে বেশি। কিন্তু সত্য কারের প্রতিভার এসব করার কোন প্রয়োজন পড়ে না। প্রতিভা থাকলে তা সবসময়ই ফুটে উঠবে এটাই স্বাভাবিক।

যা সোশ্যাল মিডিয়ার ভাবমূর্তিকে কলুষিত করছে তার বি’রুদ্ধে সরকারের ব্যবস্থা নেওয়া উচিত। এর আগেও বেশ কিছু ভিডিও ভাইরাল হয়েছিল সোশ্যাল মিডিয়ায় যেখানে সোশ্যাল মিডিয়াকে খারাপভাবে দর্শকের সামনে পরিবেশন করা হয়েছিল। মানুষ এই ভাবেই সোশ্যাল মিডিয়াকে দিনের পর দিন দুনিয়ার কাছে খারাপ করে দিচ্ছে,

এর আগে ভাইরাল হয়েছিল কলেজের কিছু মেয়ের অশ্লীল পোশাক পড়ে ভিডিও, এছাড়াও কিছু স্কুল গার্লের অত্যন্ত অশ্লীল ভাষার ভিডিও, তা ভাইরাল হয়ে যাওয়ায় চারিদিকে ধিক্কার পড়ে গিয়েছিলো। সরকারের কাছে অনুরোধ জানাই এই সব এর বি’রুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার। না হলে দিনের-পর-দিন এরকম অন্যায় হতে থাকবে, উপযুক্ত শাস্তি দিলে তবেই অ’প’রাধ কমবে।

About admin

Check Also

মে’য়েদের উ’ত্তে জিত করার স’হজ উ’পায়

মেয়েদের উ’ত্তেজিত না করে যৌ’ন মিলন করলে বেশিরভাগ ক্ষেত্রে সেই মি’লন সফল হয় না। স’হবাসে …

Leave a Reply

Your email address will not be published.