পর’কীয়া প্রেমে ধরা খেলেন মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান, বিয়ে দিয়ে দিলেন এলাকাবাসী

প’রকিয়া প্রেমের জের ধরে অবশেষে ২০ লাখ টাকা দেন মোহরে আবারও বিয়ের পিঁড়িতে বসলেন গাংনী উপজে’লা পরিষদের ম’হিলা ভাইস চেয়ারম্যান ফারহা’না ইয়াসমীন।বর মেহেরপুর সদর উপজে’লার হরিরামপুর গ্রামের আনসারুল হকের ছেলে গোলাম সরোয়ার ওরফে সবুজ। তিনি এক

স’ন্তানের জনক। তার প্রথম স্ত্রী একজন স্কুলশিক্ষক।এদিকে ভাইস চেয়ারম্যান ফারহা’না ইয়াসমীনের স্বা’মী শাহাবুদ্দীন আহমেদ প্রায় তিন মাস আগে স্ট্রো’কজনিত কারণে মা’রা যান।এক স’ন্তানের জননী ফারহা’না ইয়াসমীন গাংনী উপজে’লা আওয়ামী ম’হিলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক।মঙ্গলবার (২৬ মে) দুপুর ২টার দিকে গাংনী উপজে’লা

পরিষদের চেয়ারম্যান ও মেহেরপুর জে’লা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এমএ খালেকের উপস্থিতিতে এ বিয়ে পড়ানো হয়।বিয়েতে উকালতির দায়িত্ব পালন করেন গাংনী পৌরসভার মেয়র আশরাফুল ইসলাম।এসময় গাংনী পৌর আওয়ামী লীগের

সভাপতি সানোয়ার হোসেন বাবলু, সাধারণ সম্পাদক আনারুল ইসলাম বাবু, বুড়িপোতা ইউনিয়ন পরিষদের (মেম্বর) সানোয়ার হোসেন ও ছেলের পিতা আনসারুল হক উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে, ভাইস চেয়ারম্যান ফারহা’না ইয়াসমীনের গাংনী পৌর সভার চৌগাছা এলাকার ভাড়া বাসা থেকে স্থানীয়রা তাদের দুইজনকে আ’টক করে।এরপর খবর পেয়ে উপজে’লা চেয়ারম্যান এমএ খালেক, গাংনী পৌরসভার মেয়রআশরাফুল ইসলাম, গাংনী থানার ভারপ্রা’প্ত কর্মকর্তা (ওসি) ওবাইদুর রহমানসহ স্থানীয় লোকজন জড়ো হন।

প্রথমে তাদের পর’কিয়া প্রেমের কথা অ’স্বীকার করে ধর্ম ভাই পরিচয় দিলেও পরে ছেলের মোবাইল সার্চ করে দুইজনের বিভিন্ন কথোপকথন এবং অসা’মজিক ছবি উ’দ্ধার করা হয়। পরে ছেলে সব কথা স্বীকার করাই তাদের দুইজনের বিয়ের আয়োজন করেন তারা।

এ ব্যাপারে উপজে’লা চেয়ারম্যান এমএ খালেক বাংলানিউজকে বলেন, তাদের দুইজনের মধ্যে অ;বৈ;ধ প্রেমের সম্প’র্ক থাকায় এবং আজকে তাদের দুইজনকে স্থানীয়রা আ’টক করে। আমরা তাদের কথা শুনে এবং তাদের সি’দ্ধান্ত মোতাবেক বিয়ের আয়োজন করা হয়।

পরিষদের চেয়ারম্যান ও মেহেরপুর জে’লা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এমএ খালেকের উপস্থিতিতে এ বিয়ে পড়ানো হয়।বিয়েতে উকালতির দায়িত্ব পালন করেন গাংনী পৌরসভার মেয়র আশরাফুল ইসলাম।এসময় গাংনী পৌর আওয়ামী লীগের

সভাপতি সানোয়ার হোসেন বাবলু, সাধারণ সম্পাদক আনারুল ইসলাম বাবু, বুড়িপোতা ইউনিয়ন পরিষদের (মেম্বর) সানোয়ার হোসেন ও ছেলের পিতা আনসারুল হক উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে, ভাইস চেয়ারম্যান ফারহা’না ইয়াসমীনের গাংনী পৌর সভার চৌগাছা এলাকার ভাড়া বাসা থেকে স্থানীয়রা তাদের দুইজনকে আ’টক করে।এরপর খবর পেয়ে উপজে’লা চেয়ারম্যান এমএ খালেক, গাংনী পৌরসভার মেয়রআশরাফুল ইসলাম, গাংনী থানার ভারপ্রা’প্ত কর্মকর্তা (ওসি) ওবাইদুর রহমানসহ স্থানীয় লোকজন জড়ো হন।

প্রথমে তাদের পর’কিয়া প্রেমের কথা অ’স্বীকার করে ধর্ম ভাই পরিচয় দিলেও পরে ছেলের মোবাইল সার্চ করে দুইজনের বিভিন্ন কথোপকথন এবং অসা’মজিক ছবি উ’দ্ধার করা হয়। পরে ছেলে সব কথা স্বীকার করাই তাদের দুইজনের বিয়ের আয়োজন করেন তারা।

এ ব্যাপারে উপজে’লা চেয়ারম্যান এমএ খালেক বাংলানিউজকে বলেন, তাদের দুইজনের মধ্যে অ;বৈ;ধ প্রেমের সম্প’র্ক থাকায় এবং আজকে তাদের দুইজনকে স্থানীয়রা আ’টক করে। আমরা তাদের কথা শুনে এবং তাদের সি’দ্ধান্ত মোতাবেক বিয়ের আয়োজন করা হয়।

About admin

Check Also

গণকমিশনের অভিযোগের কোনো ভিত্তি নেই: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, ১১৬ জনকে ধর্ম ব্যবসায়ী আখ্যা দিয়ে ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির …

Leave a Reply

Your email address will not be published.