ছেঁড়া জিন্স পরে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে না আসার নির্দেশ

কলেজ ক্যাম্পাসে শিক্ষার্থীদের কৃত্রিম ভাবে ছেঁড়া কোন পোশাক না পরার মর্মে বিজ্ঞপ্তি জারি করেছেন কলকাতার আচার্য জগদীশচন্দ্র বসু কলেজ কর্তৃপক্ষ। হিজাব পরে কলেজে প্রবেশ নিষেধ করায় সম্প্রতি বিতর্ক তৈরি হয় কর্নাটকে। এ নিয়ে মামলাও হয় আদালতে। যার রেশ ছড়িয়েছে ভারতজুড়ে। এ বার পোশাকের উপর নতুন নিয়ম করল প্রতিষ্ঠানটি।

আচার্য জগদীশচন্দ্র বসু কলেজের বিজ্ঞপ্তিতে বিশেষ ভাবে উল্লেখ করা হয়েছে, কৃত্রিম ভাবে ছেঁড়া ট্রাউজার্স, জিন্স প্যান্ট পরে কলেজ ক্যাম্পাসে আসা যাবে না। যদি কেউ এ নির্দেশ অমান্য করে তাকে ট্রান্সফার সার্টিফিকেট (টিসি) দেওয়া হবে বলেও উল্লেখ রয়েছে নির্দেশকায়। কলেজ কর্তৃপক্ষের এমন সিদ্ধান্তে প্রশ্ন তুলেছেন শিক্ষার্থীদের একাংশ।

এক শিক্ষার্থী জানান, অশালীন পোশাক নিষিদ্ধ করার যুক্তি মানা যেতে পারে, কিন্তু রিপড জিন্‌স নিষিদ্ধ করার উদ্দেশ্যে এমন পোশাক নিয়ে এমন নির্দেশনা জারি অযৌক্তিক। তাঁর মতে এই ধরনের নিয়ম তৈরি করে কলেজ কর্তৃপক্ষ ব্যক্তিগত পছন্দ-অপছন্দে হস্তক্ষেপ করছেন। যদিও উঠে আসছে পাল্টা যুক্তি। এই ধরনের পোশাক কলেজে অপ্রীতিকর পরিবেশ তৈরি করে বলেও অনেকের মত।

প্রসঙ্গত, কয়েক বছর আগে মুম্বাইয়ের একটি কলেজ ক্যাম্পাসে ছেঁড়া জিন্স নিষিদ্ধ করার বিজ্ঞপ্তি জারি হয়েছিল। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ এমন নির্দেশিকার পিছনে সামাজিক কারণ রয়েছে বলে দাবি করে বলেছিলেন, ওই ধরনের পোশাক দরিদ্রদের ব্যঙ্গ করে। যাঁদের ছেঁড়া পোশাক পরা ছাড়া কোনও উপায় নেই, তাঁদের কটাক্ষ করে।

কলেজ ক্যাম্পাসে শিক্ষার্থীদের কৃত্রিম ভাবে ছেঁড়া কোন পোশাক না পরার মর্মে বিজ্ঞপ্তি জারি করেছেন কলকাতার আচার্য জগদীশচন্দ্র বসু কলেজ কর্তৃপক্ষ। হিজাব পরে কলেজে প্রবেশ নিষেধ করায় সম্প্রতি বিতর্ক তৈরি হয় কর্নাটকে। এ নিয়ে মামলাও হয় আদালতে। যার রেশ ছড়িয়েছে ভারতজুড়ে। এ বার পোশাকের উপর নতুন নিয়ম করল প্রতিষ্ঠানটি।

আচার্য জগদীশচন্দ্র বসু কলেজের বিজ্ঞপ্তিতে বিশেষ ভাবে উল্লেখ করা হয়েছে, কৃত্রিম ভাবে ছেঁড়া ট্রাউজার্স, জিন্স প্যান্ট পরে কলেজ ক্যাম্পাসে আসা যাবে না। যদি কেউ এ নির্দেশ অমান্য করে তাকে ট্রান্সফার সার্টিফিকেট (টিসি) দেওয়া হবে বলেও উল্লেখ রয়েছে নির্দেশকায়। কলেজ কর্তৃপক্ষের এমন সিদ্ধান্তে প্রশ্ন তুলেছেন শিক্ষার্থীদের একাংশ।

এক শিক্ষার্থী জানান, অশালীন পোশাক নিষিদ্ধ করার যুক্তি মানা যেতে পারে, কিন্তু রিপড জিন্‌স নিষিদ্ধ করার উদ্দেশ্যে এমন পোশাক নিয়ে এমন নির্দেশনা জারি অযৌক্তিক। তাঁর মতে এই ধরনের নিয়ম তৈরি করে কলেজ কর্তৃপক্ষ ব্যক্তিগত পছন্দ-অপছন্দে হস্তক্ষেপ করছেন। যদিও উঠে আসছে পাল্টা যুক্তি। এই ধরনের পোশাক কলেজে অপ্রীতিকর পরিবেশ তৈরি করে বলেও অনেকের মত।

প্রসঙ্গত, কয়েক বছর আগে মুম্বাইয়ের একটি কলেজ ক্যাম্পাসে ছেঁড়া জিন্স নিষিদ্ধ করার বিজ্ঞপ্তি জারি হয়েছিল। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ এমন নির্দেশিকার পিছনে সামাজিক কারণ রয়েছে বলে দাবি করে বলেছিলেন, ওই ধরনের পোশাক দরিদ্রদের ব্যঙ্গ করে। যাঁদের ছেঁড়া পোশাক পরা ছাড়া কোনও উপায় নেই, তাঁদের কটাক্ষ করে।

About admin

Check Also

গণকমিশনের অভিযোগের কোনো ভিত্তি নেই: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, ১১৬ জনকে ধর্ম ব্যবসায়ী আখ্যা দিয়ে ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির …

Leave a Reply

Your email address will not be published.