খুনের ২৪ বছর পর সোহেল চৌধুরীর খুনি গ্রেপ্তার, মেয়ের স্ট্যাটাস

দীর্ঘ ২৪ বছর আগে চাঞ্চল্যকর ও বহুল আলোচিত চিত্রনায়ক সোহেল চৌধুরী হত্যা মামলার পলাতক ও চার্জশিটভুক্ত এক নম্বর আসামি আশিষ রায় চৌধুরী ওরফে বোতল চৌধুরীকে গ্রেফতার করেছে র;্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র;্যাব)। মঙ্গলবার (৫ এপ্রিল) রাতে রাজধানীর গুলশানের ২৫/বি ফিরোজা গার্ডেন নামের একটি বাসা থেকে তাকে গ্রেফতার করে র&;্যাব।

বাবার খুনি গ্রেপ্তার হলেও চিত্রনায়ক সোহেল চৌধুরীর ছেলে-মেয়ে এ বিষয়ে মুখ খোলেনি। তবে তার মেয়ে লামিয়া চৌধুরী ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন। লামিয়া লিখেছেন- ‘ভালো আছি, ভালো থেকো, আকাশের ঠিকানায় চিঠি লিখো।

ধারণা করা হচ্ছে, চিঠিটি বাবার উদ্দেশ্যে পাঠিয়েছেন মেয়ে। অথবা মা চিত্রনায়িকা দিতির উদ্দেশ্যেও লেখা হতে পারে। তবে সোহেল-দিতি দম্পতির পুত্র শাফায়েত চৌধুরী আছেন একেবারেই নিশ্চুপ। কোথাও তার কোনো প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি।

এদিকে বোতল চৌধুরীকে গ্রেপ্তারের পর তাকে এই হত্যাকাণ্ডের অন্যতম পরিকল্পনাকারী বলে জানিয়েছেন র‍্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন। বুধবার (৬ এপ্রিল) দুপুরে কারওয়ানবাজারে র‍্যাব মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান তিনি।

উল্লেখ্য, ১৯৯৮ সালের ১৭ ডিসেম্বর বনানীর ক্লাব ট্রামসের নিচে চিত্রনায়ক সোহেল চৌধুরীকে গুলি করে হত্যা করা হয়। এ ঘটনায় তার ভাই তৌহিদুল ইসলাম চৌধুরী গুলশান থানায় মামলা করেন।

গোয়েন্দা পুলিশ ১৯৯৯ সালের ৩০ জুলাই ৯ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দেয়। এ মামলায় কারাগারে আছেন তারিক সাঈদ মামুন ও হারুন অর রশীদ। আর পলাতক রয়েছেন আসামি আজিজ মোহাম্মদ ভাই, আশিক রায় চৌধুরী, সানজিদুল হাসান ইমন ও সেলিম খান।

দীর্ঘ ২৪ বছর আগে চাঞ্চল্যকর ও বহুল আলোচিত চিত্রনায়ক সোহেল চৌধুরী হত্যা মামলার পলাতক ও চার্জশিটভুক্ত এক নম্বর আসামি আশিষ রায় চৌধুরী ওরফে বোতল চৌধুরীকে গ্রেফতার করেছে র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‍্যাব)। মঙ্গলবার (৫ এপ্রিল) রাতে রাজধানীর গুলশানের ২৫/বি ফিরোজা গার্ডেন নামের একটি বাসা থেকে তাকে গ্রেফতার করে র‍্যাব।

বাবার খুনি গ্রেপ্তার হলেও চিত্রনায়ক সোহেল চৌধুরীর ছেলে-মেয়ে এ বিষয়ে মুখ খোলেনি। তবে তার মেয়ে লামিয়া চৌধুরী ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন। লামিয়া লিখেছেন- ‘ভালো আছি, ভালো থেকো, আকাশের ঠিকানায় চিঠি লিখো।

ধারণা করা হচ্ছে, চিঠিটি বাবার উদ্দেশ্যে পাঠিয়েছেন মেয়ে। অথবা মা চিত্রনায়িকা দিতির উদ্দেশ্যেও লেখা হতে পারে। তবে সোহেল-দিতি দম্পতির পুত্র শাফায়েত চৌধুরী আছেন একেবারেই নিশ্চুপ। কোথাও তার কোনো প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি।

এদিকে বোতল চৌধুরীকে গ্রেপ্তারের পর তাকে এই হত্যাকাণ্ডের অন্যতম পরিকল্পনাকারী বলে জানিয়েছেন র‍্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন। বুধবার (৬ এপ্রিল) দুপুরে কারওয়ানবাজারে র‍্যাব মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান তিনি।

উল্লেখ্য, ১৯৯৮ সালের ১৭ ডিসেম্বর বনানীর ক্লাব ট্রামসের নিচে চিত্রনায়ক সোহেল চৌধুরীকে গুলি করে হত্যা করা হয়। এ ঘটনায় তার ভাই তৌহিদুল ইসলাম চৌধুরী গুলশান থানায় মামলা করেন।

গোয়েন্দা পুলিশ ১৯৯৯ সালের ৩০ জুলাই ৯ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দেয়। এ মামলায় কারাগারে আছেন তারিক সাঈদ মামুন ও হারুন অর রশীদ। আর পলাতক রয়েছেন আসামি আজিজ মোহাম্মদ ভাই, আশিক রায় চৌধুরী, সানজিদুল হাসান ইমন ও সেলিম খান।

About admin

Check Also

স্বল্প পোশাকে গাড়ির ভেতর উদ্দাম নাচ নেহা কক্করের, নিমেষে ভাইরাল ভিডিও

প্রথম পাতায় নেহা কক্কর থাকবেননা তা কি কখনো হয়? এমনিতেই অতিমারির মধ্যে বেশ জাঁকজমকপূর্ণ ভাবে …

Leave a Reply

Your email address will not be published.