ভালোবাসার অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করলেন ক্রিকেটার রুবেলের স্ত্রী

বাংলাদেশের সাবেক ক্রিকেটার মোশাররফ হোসেন রুবেল ব্রেন টিউমারে আক্রান্ত হয়ে ভর্তি আছেন ঢাকার একটি হাসপাতালে। তবে সাম্প্রতিক তার ও তার স্ত্রীর একটি ছবি ভাইরাল হয়েছে। যাকে ভালোবাসার অনন্য দৃষ্টান্ত বলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অনেকেই শেয়ার দিচ্ছেন! সাবেক টাইগার স্পিনার মোশাররফ রুবেলের ২০১৯ সালের মার্চে ব্রেইন টিউমার ধরা পড়ে।

কেমোথেরাপি নিতে কয়েকদফায় বিদেশে যেতে হয়েছে তাকে। বর্তমানে ঢাকার একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন। গতকাল বৃহস্পতিবার ফেসবুকে তিনটি ছবি পোস্ট করেছেন চৈতি। ছবিতে দেখা যাচ্ছে হাসপাতালের কেবিনে অসুস্থ স্বামীর শয্যার পাশে স্ত্রী চৈতি বই পড়ছেন এবং মোশাররফ রুবেল মন্ত্রমুগ্ধ হয়ে শুনছেন।

আর এই ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে নেটিজেনরা ছবিটি শেয়ার দিয়ে তাদের ভালোবাসার এই মূহুর্তকে অনন্য ও জীবনের অন্যতম সেরা প্রাপ্তি বলে প্রশংসা করছেন। এর আগে গত ২০১৯ সালে সিঙ্গাপুরের মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে ১৯ মার্চ নিউরো সার্জন এলভিন হংয়ের তত্ত্বাবধানে সফল অস্ত্রোপচার হয় তার।

এরপর দেশে ফিরে আসেন। কিন্তু কেমো এবং রেডিও থেরাপির জন্য তাকে নিয়মিত সিঙ্গাপুর যাওয়া আসার মধ্যে থাকতে হতো। ওই বছরের ডিসেম্বর সর্বশেষ কেমো দেওয়া হয়।

এক বছর ফলোআপে ছিলেন তিনি। ২০২০ সালে সুস্থ, স্বাভাবিক হয়ে মাঠে ফেরার প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন। কিন্তু নভেম্বরে আবার অসুস্থ হলে ভেঙে পড়েন। জানুয়ারি থেকে পুনরায় কেমো নেওয়া শুরু করেন।

বাংলাদেশের সাবেক ক্রিকেটার মোশাররফ হোসেন রুবেল ব্রেন টিউমারে আক্রান্ত হয়ে ভর্তি আছেন ঢাকার একটি হাসপাতালে। তবে সাম্প্রতিক তার ও তার স্ত্রীর একটি ছবি ভাইরাল হয়েছে। যাকে ভালোবাসার অনন্য দৃষ্টান্ত বলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অনেকেই শেয়ার দিচ্ছেন! সাবেক টাইগার স্পিনার মোশাররফ রুবেলের ২০১৯ সালের মার্চে ব্রেইন টিউমার ধরা পড়ে।

কেমোথেরাপি নিতে কয়েকদফায় বিদেশে যেতে হয়েছে তাকে। বর্তমানে ঢাকার একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন। গতকাল বৃহস্পতিবার ফেসবুকে তিনটি ছবি পোস্ট করেছেন চৈতি। ছবিতে দেখা যাচ্ছে হাসপাতালের কেবিনে অসুস্থ স্বামীর শয্যার পাশে স্ত্রী চৈতি বই পড়ছেন এবং মোশাররফ রুবেল মন্ত্রমুগ্ধ হয়ে শুনছেন।

আর এই ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে নেটিজেনরা ছবিটি শেয়ার দিয়ে তাদের ভালোবাসার এই মূহুর্তকে অনন্য ও জীবনের অন্যতম সেরা প্রাপ্তি বলে প্রশংসা করছেন। এর আগে গত ২০১৯ সালে সিঙ্গাপুরের মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে ১৯ মার্চ নিউরো সার্জন এলভিন হংয়ের তত্ত্বাবধানে সফল অস্ত্রোপচার হয় তার।

এরপর দেশে ফিরে আসেন। কিন্তু কেমো এবং রেডিও থেরাপির জন্য তাকে নিয়মিত সিঙ্গাপুর যাওয়া আসার মধ্যে থাকতে হতো। ওই বছরের ডিসেম্বর সর্বশেষ কেমো দেওয়া হয়।

এক বছর ফলোআপে ছিলেন তিনি। ২০২০ সালে সুস্থ, স্বাভাবিক হয়ে মাঠে ফেরার প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন। কিন্তু নভেম্বরে আবার অসুস্থ হলে ভেঙে পড়েন। জানুয়ারি থেকে পুনরায় কেমো নেওয়া শুরু করেন।

About admin

Check Also

স্ত্রীর দেওয়া স্ট্যাটাস নিয়ে যা বললেন মুশফিক

দীর্ঘদিন পর টেস্টে সেঞ্চুরির দেখা পেলেন টাইগার ব্যাটার মুশফিকুর রহিম। চট্টগ্রাম টেস্টে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সেঞ্চুরি …

Leave a Reply

Your email address will not be published.