নামাজরত অবস্থায় মুসল্লির মৃত্যু

মৃত্যু অনিবার্য। জন্ম নিলে মরতে হয়। শুধু মানুষ নয়। যার ভেতরে প্রাণ আছে সে মরবেই। তুরস্কে নামাজ পড়ার সময় এক মুসুল্লি ইন্তেকাল করেছেন। বৃহস্পতিবার আলজাজিরা বিষয়টি নিশ্চিত করে।সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ওই মুসুল্লির ইন্তেকালের একটি ভিডিও ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়েছে।

মসজিদের সিসি ক্যামেরায় ধারণ করা ওই ভিডিওতে দেখা যায়, একাকী নামাজ পড়ছিলেন তিনি। সেজদা থেকে উঠে বৈঠকে বসলেন। এরই মধ্যে হার্ট অ্যাটাকে আক্রান্ত হয়ে ধীরে ধীরে মেঝোতে লুটিয়ে পড়েন।

আলজাজিরা জানায়, ঘটনাটি ঘটেছে তুরস্কের উত্তরাঞ্চলীয় শহর সিনোপের আল ফাতিহ মসজিদে।মুসুল্লির এ অবস্থা দেখে আশপাশে নামাজে থাকা লোকেরা তার কাছে ছুটে আসেন কিন্তু ততক্ষণে তিনি মহান প্রভুর ডাকে সাড়া দিয়ে ফেলেছেন।

স্থানীয় একাধিক সংবাদমাধ্যম জানায়, ওই মুসুল্লির নাম সালাহুদ্দীন (৬৯)। তার তিনটি সন্তান রয়েছে। তিনি নিস্তেজ হওয়ার পরও তাকে অ্যাম্বুলেন্সে করে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। কিন্তু চিকিৎসকেরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

ওই মসজিদের খতিব শায়খ আতিলা শেনতুর্ক বলেন, গত ২২ বছরের পেশাগত জীবনে এরকম আশ্চর্য ঘটনা এই প্রথম দেখলাম। আমি মিম্বরে ছিলাম আর আমাদের ভাই সালাহুদ্দীন মুসুল্লিদের কাতারে নামাজ আদায় করছিলেন। এ সময়-ই তার ইন্তেকাল হলো।

মৃত্যু অনিবার্য। জন্ম নিলে মরতে হয়। শুধু মানুষ নয়। যার ভেতরে প্রাণ আছে সে মরবেই। তুরস্কে নামাজ পড়ার সময় এক মুসুল্লি ইন্তেকাল করেছেন। বৃহস্পতিবার আলজাজিরা বিষয়টি নিশ্চিত করে।সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ওই মুসুল্লির ইন্তেকালের একটি ভিডিও ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়েছে।

মসজিদের সিসি ক্যামেরায় ধারণ করা ওই ভিডিওতে দেখা যায়, একাকী নামাজ পড়ছিলেন তিনি। সেজদা থেকে উঠে বৈঠকে বসলেন। এরই মধ্যে হার্ট অ্যাটাকে আক্রান্ত হয়ে ধীরে ধীরে মেঝোতে লুটিয়ে পড়েন।

আলজাজিরা জানায়, ঘটনাটি ঘটেছে তুরস্কের উত্তরাঞ্চলীয় শহর সিনোপের আল ফাতিহ মসজিদে।মুসুল্লির এ অবস্থা দেখে আশপাশে নামাজে থাকা লোকেরা তার কাছে ছুটে আসেন কিন্তু ততক্ষণে তিনি মহান প্রভুর ডাকে সাড়া দিয়ে ফেলেছেন।

স্থানীয় একাধিক সংবাদমাধ্যম জানায়, ওই মুসুল্লির নাম সালাহুদ্দীন (৬৯)। তার তিনটি সন্তান রয়েছে। তিনি নিস্তেজ হওয়ার পরও তাকে অ্যাম্বুলেন্সে করে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। কিন্তু চিকিৎসকেরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

ওই মসজিদের খতিব শায়খ আতিলা শেনতুর্ক বলেন, গত ২২ বছরের পেশাগত জীবনে এরকম আশ্চর্য ঘটনা এই প্রথম দেখলাম। আমি মিম্বরে ছিলাম আর আমাদের ভাই সালাহুদ্দীন মুসুল্লিদের কাতারে নামাজ আদায় করছিলেন। এ সময়-ই তার ইন্তেকাল হলো।

স্থানীয় একাধিক সংবাদমাধ্যম জানায়, ওই মুসুল্লির নাম সালাহুদ্দীন (৬৯)। তার তিনটি সন্তান রয়েছে। তিনি নিস্তেজ হওয়ার পরও তাকে অ্যাম্বুলেন্সে করে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। কিন্তু চিকিৎসকেরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

About admin

Check Also

গণকমিশনের অভিযোগের কোনো ভিত্তি নেই: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, ১১৬ জনকে ধর্ম ব্যবসায়ী আখ্যা দিয়ে ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির …

Leave a Reply

Your email address will not be published.