নাহিদকে কোপানো সেই হেলমেটধারীকে শনাক্ত করতে পারেনি পুলিশ

রাজধানীর নিউমার্কেটে গত মঙ্গলবারের সংঘর্ষে হেলমেট পরা এক যুবক ধারালো অস্ত্র দিয়ে রাস্তায় পড়ে থাকা কুরিয়ার সার্ভিসের কর্মী নাহিদ হোসেনকে কোপাচ্ছেন। এমন একটি ভিডিও দুই দিন ধরেই সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ঘুরছে।

তবে হেলমেটধারী যুবককে এখন পর্যন্ত শনাক্ত করতে পারেনি পুলিশ। এ বিষয়ে পুলিশ কর্মকর্তারা বলছেন, হেলমেটধারী যুবক ঢাকা কলেজের শিক্ষার্থী, এটুকু মোটামুটি নিশ্চিত হওয়া গেছে।

তবে গত মঙ্গলবারের সংঘর্ষে ধারালো অস্ত্র ও লাঠি হাতে অংশ নেওয়া অন্য ১২ জনকে শনাক্ত করা গেছে বলে পুলিশ কর্মকর্তারা জানিয়েছেন। তাঁরা বলছেন, বিভিন্ন মাধ্যম থেকে সংগ্রহ করা সংঘর্ষের ভিডিও ফুটেজ

ও ছবি দেখে হামলাকারী হিসেবে যাঁদের শনাক্ত করা হয়েছে, তাঁদের মধ্যে ঢাকা কলেজের ছাত্র, নিউমার্কেট এলাকার ব্যবসায়ী ও দোকান কর্মচারীরা রয়েছেন। তদন্তের স্বার্থে এখনই তাঁদের পরিচয় পুলিশ প্রকাশ করতে চাইছেন না।

এ ব্যাপারে ঢাকা মহানগর পুলিশের নিউমার্কেট অঞ্চলের জ্যেষ্ঠ সহকারী কমিশনার শরীফ মো. ফারুকুজ্জামান বলেন, এখন পর্যন্ত তাঁরা যা জানতে পেরেছেন, সেটি হলো প্রথমে ঢাকা কলেজের ছাত্ররা নাহিদকে শিক্ষার্থী মনে করেছিলেন।

পরে তাঁর পরিচয় নিশ্চিত হওয়ার পরই পেটানো হয়। এক পর্যায়ে তাঁকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কোপানো হয়। নিউমার্কেটে দুই দিনের সংঘর্ষের ঘটনায় বেশ কয়েকজনকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে।

এদিকে নাহিদ হত্যা মামলা তদন্ত করছে ডিবির রমনা বিভাগ। এ মামলার তদন্ত তদারক কর্মকর্তা ডিবির রমনা বিভাগের উপকমিশনার এইচ এম আজিমুল হক। তিনি বলেন, হেলমেট পরা ব্যক্তিরা ঢাকা কলেজের শিক্ষার্থী বলে মনে হচ্ছে। হামলায় জড়িত সবাইকে শনাক্তে কাজ চলছে

রাজধানীর নিউমার্কেটে গত মঙ্গলবারের সংঘর্ষে হেলমেট পরা এক যুবক ধারালো অস্ত্র দিয়ে রাস্তায় পড়ে থাকা কুরিয়ার সার্ভিসের কর্মী নাহিদ হোসেনকে কোপাচ্ছেন। এমন একটি ভিডিও দুই দিন ধরেই সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ঘুরছে।

তবে হেলমেটধারী যুবককে এখন পর্যন্ত শনাক্ত করতে পারেনি পুলিশ। এ বিষয়ে পুলিশ কর্মকর্তারা বলছেন, হেলমেটধারী যুবক ঢাকা কলেজের শিক্ষার্থী, এটুকু মোটামুটি নিশ্চিত হওয়া গেছে।

তবে গত মঙ্গলবারের সংঘর্ষে ধারালো অস্ত্র ও লাঠি হাতে অংশ নেওয়া অন্য ১২ জনকে শনাক্ত করা গেছে বলে পুলিশ কর্মকর্তারা জানিয়েছেন। তাঁরা বলছেন, বিভিন্ন মাধ্যম থেকে সংগ্রহ করা সংঘর্ষের ভিডিও ফুটেজ

ও ছবি দেখে হামলাকারী হিসেবে যাঁদের শনাক্ত করা হয়েছে, তাঁদের মধ্যে ঢাকা কলেজের ছাত্র, নিউমার্কেট এলাকার ব্যবসায়ী ও দোকান কর্মচারীরা রয়েছেন। তদন্তের স্বার্থে এখনই তাঁদের পরিচয় পুলিশ প্রকাশ করতে চাইছেন না।

এ ব্যাপারে ঢাকা মহানগর পুলিশের নিউমার্কেট অঞ্চলের জ্যেষ্ঠ সহকারী কমিশনার শরীফ মো. ফারুকুজ্জামান বলেন, এখন পর্যন্ত তাঁরা যা জানতে পেরেছেন, সেটি হলো প্রথমে ঢাকা কলেজের ছাত্ররা নাহিদকে শিক্ষার্থী মনে করেছিলেন।

পরে তাঁর পরিচয় নিশ্চিত হওয়ার পরই পেটানো হয়। এক পর্যায়ে তাঁকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কোপানো হয়। নিউমার্কেটে দুই দিনের সংঘর্ষের ঘটনায় বেশ কয়েকজনকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে।

এদিকে নাহিদ হত্যা মামলা তদন্ত করছে ডিবির রমনা বিভাগ। এ মামলার তদন্ত তদারক কর্মকর্তা ডিবির রমনা বিভাগের উপকমিশনার এইচ এম আজিমুল হক। তিনি বলেন, হেলমেট পরা ব্যক্তিরা ঢাকা কলেজের শিক্ষার্থী বলে মনে হচ্ছে। হামলায় জড়িত সবাইকে শনাক্তে কাজ চলছে

About admin

Check Also

বন্যায় সিলেট নগরে বিয়ে, রিকশায় বরের বাড়ি যাচ্ছেন কনে

উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে সিলেটে বন্যা দেখা দিয়েছে। সুরমা নদী উপচে সিলেট নগরেও …

Leave a Reply

Your email address will not be published.