স্ত্রীর দেওয়া স্ট্যাটাস নিয়ে যা বললেন মুশফিক

দীর্ঘদিন পর টেস্টে সেঞ্চুরির দেখা পেলেন টাইগার ব্যাটার মুশফিকুর রহিম। চট্টগ্রাম টেস্টে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সেঞ্চুরি হাঁকিয়েছেন তিনি। সেই সঙ্গে ছুয়েছেন ব্যক্তিগত টেস্ট ক্যারিয়ারে ৫ হাজার রানের মাইলফলক। মুশফিকের এমন কৃতীর পর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন তার স্ত্রী জান্নাতুল কেফায়াত মন্ডি। সেই স্ট্যাটাসকে ঘিরে ব্যাপক আলোচনা চলছে।

ইন্সটাগ্রামে দেয়া এক পোস্টে মুশফিকের সেঞ্চুরি উদযাপনের ছবি দিয়ে তিনি লিখেছেন, ‘আমরা হাসি মুখেই বিদায় নেবো ইনশাআল্লাহ! তবে আপনাদের রিপ্লেসমেন্ট (বদলি) আছে তো??? সেদিকেও একটু নজর দিলে বাংলাদেশ ক্রিকেটের উন্নয়ন হতো!’ স্ট্যাটাসের পরে ভক্তদের বোঝার বাকি নেই, অভিমান বা রাগ থেকেই হয়তো এমনটা বলেছেন মুশফিকপত্নী।

চট্টগ্রাম টেস্টের চতুর্থ দিনের খেলা শেষে সংবাদ সম্মেলনে স্বাভাবিকভাবেই মুশফিককে তার স্ত্রীর পোস্ট সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করা হয়। জানতে চাওয়া হয়, মাঠের খেলার প্রভাবে কি পরিবারের সদস্যরাও মন খারাপ করে কি না।

এর জবাবে মুশফিক জানান, ‘প্রথমত আমি দেখিনি (মন্ডি) কি লিখেছে। দেখলে বলতে পারবো যে সে কি লিখেছে বা কেনো লিখেছে। মাঝে মাঝে একটু (কষ্ট) হলেও স্বাভাবিক, এটা কোনো ক্রিকেটারের জন্যই কাম্য নয়।’

এ সময় দর্শক মহল থেকে উচ্চ পর্যায় পর্যন্ত ক্রিকেটারদের নিয়ে অসহিষ্ণুতার বিষয়ে তিনি বলেন, ‘একমাত্র বাংলাদেশেই একদিন সেঞ্চুরি করলে ব্র্যাডম্যানের মতো বড় খেলোয়াড় হয়ে যায়। এরপর দুইদিন রান না করলে আবার দেখা যায় মনে হয় গর্তে ঢুকে যাই। এটা শুধু একমাত্র আমাদের বাংলাদেশেই হয়।’

তিনি আরও বলেন, ‘যারা এসব বলে থাকেন, তারা যদি আরেকটু পরিণত হতে পারেন তাহলে বাংলাদেশের খেলোয়াড়দের জন্য আরও ভালো। আমরা তো সিনিয়র প্লেয়ার। আমরা হয়তো বেশিদিন খেলবোও না।’

জুনিয়রদের জন্য সমর্থন চেয়ে মুশফিক বলেন, ‘এটা ক্রিকেট সংস্কৃতির ব্যাপার। জুনিয়র যারা আছে তাদের যদি সমর্থন দেওয়া হয় তাহলে তারা অনুপ্রাণিত হবে। কারণ মাঠে আমাদের এত কিছু করতে হয়, এরপর যদি মাঠের বাইরে কি হচ্ছে সেটা ভাবতে যাই তাহলে মাঠের কাজটা কঠিন হয়ে যায়।’

দীর্ঘদিন পর টেস্টে সেঞ্চুরির দেখা পেলেন টাইগার ব্যাটার মুশফিকুর রহিম। চট্টগ্রাম টেস্টে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সেঞ্চুরি হাঁকিয়েছেন তিনি। সেই সঙ্গে ছুয়েছেন ব্যক্তিগত টেস্ট ক্যারিয়ারে ৫ হাজার রানের মাইলফলক। মুশফিকের এমন কৃতীর পর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন তার স্ত্রী জান্নাতুল কেফায়াত মন্ডি। সেই স্ট্যাটাসকে ঘিরে ব্যাপক আলোচনা চলছে।

ইন্সটাগ্রামে দেয়া এক পোস্টে মুশফিকের সেঞ্চুরি উদযাপনের ছবি দিয়ে তিনি লিখেছেন, ‘আমরা হাসি মুখেই বিদায় নেবো ইনশাআল্লাহ! তবে আপনাদের রিপ্লেসমেন্ট (বদলি) আছে তো??? সেদিকেও একটু নজর দিলে বাংলাদেশ ক্রিকেটের উন্নয়ন হতো!’ স্ট্যাটাসের পরে ভক্তদের বোঝার বাকি নেই, অভিমান বা রাগ থেকেই হয়তো এমনটা বলেছেন মুশফিকপত্নী।

চট্টগ্রাম টেস্টের চতুর্থ দিনের খেলা শেষে সংবাদ সম্মেলনে স্বাভাবিকভাবেই মুশফিককে তার স্ত্রীর পোস্ট সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করা হয়। জানতে চাওয়া হয়, মাঠের খেলার প্রভাবে কি পরিবারের সদস্যরাও মন খারাপ করে কি না।

এর জবাবে মুশফিক জানান, ‘প্রথমত আমি দেখিনি (মন্ডি) কি লিখেছে। দেখলে বলতে পারবো যে সে কি লিখেছে বা কেনো লিখেছে। মাঝে মাঝে একটু (কষ্ট) হলেও স্বাভাবিক, এটা কোনো ক্রিকেটারের জন্যই কাম্য নয়।’

এ সময় দর্শক মহল থেকে উচ্চ পর্যায় পর্যন্ত ক্রিকেটারদের নিয়ে অসহিষ্ণুতার বিষয়ে তিনি বলেন, ‘একমাত্র বাংলাদেশেই একদিন সেঞ্চুরি করলে ব্র্যাডম্যানের মতো বড় খেলোয়াড় হয়ে যায়। এরপর দুইদিন রান না করলে আবার দেখা যায় মনে হয় গর্তে ঢুকে যাই। এটা শুধু একমাত্র আমাদের বাংলাদেশেই হয়।’

তিনি আরও বলেন, ‘যারা এসব বলে থাকেন, তারা যদি আরেকটু পরিণত হতে পারেন তাহলে বাংলাদেশের খেলোয়াড়দের জন্য আরও ভালো। আমরা তো সিনিয়র প্লেয়ার। আমরা হয়তো বেশিদিন খেলবোও না।’

জুনিয়রদের জন্য সমর্থন চেয়ে মুশফিক বলেন, ‘এটা ক্রিকেট সংস্কৃতির ব্যাপার। জুনিয়র যারা আছে তাদের যদি সমর্থন দেওয়া হয় তাহলে তারা অনুপ্রাণিত হবে। কারণ মাঠে আমাদের এত কিছু করতে হয়, এরপর যদি মাঠের বাইরে কি হচ্ছে সেটা ভাবতে যাই তাহলে মাঠের কাজটা কঠিন হয়ে যায়।’

About admin

Check Also

ক্রিকেটকে ক্ষতি করে ২ কোটি টাকার জন্য আমি অবসর নিতে চাইনি: মাশরাফি

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ৩ টা আলাদা আলাদা দশকে নিজের দেশকে নেতৃত্ব দেয়া ইতিহাসের একমাত্র অধিনায়ক মাশরাফি …

Leave a Reply

Your email address will not be published.