কন্ট্রোল রুমের সাথে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন বিমানের, উদ্ধারে গিয়ে দেখা যায় ‘ঘুমাচ্ছেন’ পাইলট!

চলন্ত বিমানের সাথে হঠাৎ যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায় কন্ট্রোল রুমের। অনেক চেষ্টা করেও প্রায় ১০ মিনিট ধরে কোনো রকমেই যোগাযোগ পুনঃস্থাপন করতে না পেয়ে বিমানটি উদ্ধারে অভিযান পরিচালনা করা হয়। তবে উদ্ধারে গিয়ে দেখা যায়, ককপিটে চেয়ারে বসেই ঘুমিয়ে পড়েছেন পাইলট ও তার সহকারী পাইলট। সম্প্রতি এ ঘটনা ঘটেছে যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে। খবর এনডিটিভির।

জানা যায়, মাঝ আকাশে বিমানটির সঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হওয়ার পর যোগাযোগের চেষ্টা করার পরও যখন ব্যর্থ হয়, তখন ধরে নেয়া হয় বিমানটিকে অপহরণ করা হয়েছে। আর এরপরই সেটিকে উদ্ধারে দু’টি ফাইটার জেট পাঠানো হয়। কিন্তু উদ্ধারে গিয়ে দেখা যায়, ককপিটে নিজ নিজ আসনে ঘুমিয়ে পড়েছিলেন দুই চালক।

আইটিএ এয়ারলাইন্সের যাত্রীবাহী ফ্লাইটে নিউ ইয়র্ক থেকে রোমের দায়িত্বে ছিলেন এ ক্যাপ্টেন। প্রথমে, পাইলট দাবি করেছিলেন যে যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে তিনি ট্রাফিক কন্ট্রোলারদের সাথে যোগাযোগ করতে পারেননি। তবে তদন্তের পরে, আইটিএ এয়ারওয়েজ ক্যাপ্টেনের ভাষ্যে অসঙ্গতি খুঁজে পেয়েছে।

এ ঘটনায় পাইলটকে বরখাস্ত করা হয়েছে। ফ্লাইটটি অটোপাইলটে ছিল, স্বাভাবিক গতি এবং উচ্চতায় উড়ছিল এবং এর রুট থেকে কখনও বিচ্যুত হয়নি। একজন এয়ারলাইন মুখপাত্র বলেছেন, যাত্রীদের নিরাপত্তার ব্যাপারে কখনই আপস নয়। ফ্লাইটের নিরাপত্তা সর্বদা নিশ্চিত করতে হবে। বিষয়টি জানাজানি হলে তীব্র নিন্দা ও সমালোচনা শুরু হয়।

চলন্ত বিমানের সাথে হঠাৎ যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায় কন্ট্রোল রুমের। অনেক চেষ্টা করেও প্রায় ১০ মিনিট ধরে কোনো রকমেই যোগাযোগ পুনঃস্থাপন করতে না পেয়ে বিমানটি উদ্ধারে অভিযান পরিচালনা করা হয়। তবে উদ্ধারে গিয়ে দেখা যায়, ককপিটে চেয়ারে বসেই ঘুমিয়ে পড়েছেন পাইলট ও তার সহকারী পাইলট। সম্প্রতি এ ঘটনা ঘটেছে যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে। খবর এনডিটিভির।

জানা যায়, মাঝ আকাশে বিমানটির সঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হওয়ার পর যোগাযোগের চেষ্টা করার পরও যখন ব্যর্থ হয়, তখন ধরে নেয়া হয় বিমানটিকে অপহরণ করা হয়েছে। আর এরপরই সেটিকে উদ্ধারে দু’টি ফাইটার জেট পাঠানো হয়। কিন্তু উদ্ধারে গিয়ে দেখা যায়, ককপিটে নিজ নিজ আসনে ঘুমিয়ে পড়েছিলেন দুই চালক।

আইটিএ এয়ারলাইন্সের যাত্রীবাহী ফ্লাইটে নিউ ইয়র্ক থেকে রোমের দায়িত্বে ছিলেন এ ক্যাপ্টেন। প্রথমে, পাইলট দাবি করেছিলেন যে যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে তিনি ট্রাফিক কন্ট্রোলারদের সাথে যোগাযোগ করতে পারেননি। তবে তদন্তের পরে, আইটিএ এয়ারওয়েজ ক্যাপ্টেনের ভাষ্যে অসঙ্গতি খুঁজে পেয়েছে।

এ ঘটনায় পাইলটকে বরখাস্ত করা হয়েছে। ফ্লাইটটি অটোপাইলটে ছিল, স্বাভাবিক গতি এবং উচ্চতায় উড়ছিল এবং এর রুট থেকে কখনও বিচ্যুত হয়নি। একজন এয়ারলাইন মুখপাত্র বলেছেন, যাত্রীদের নিরাপত্তার ব্যাপারে কখনই আপস নয়। ফ্লাইটের নিরাপত্তা সর্বদা নিশ্চিত করতে হবে। বিষয়টি জানাজানি হলে তীব্র নিন্দা ও সমালোচনা শুরু হয়।

About admin

Check Also

যুদ্ধ চলছে দেশে, ভারতে এসে বিয়ে করলেন রুশ তরুণ ও ইউক্রেনীয় তরুণী

প্রেম মানে না কোনো বাধা এই প্রবাদ বাক্যটি আবারও সত্য প্রমাণিত করেছে রাশিয়ার এক তরুণ …

Leave a Reply

Your email address will not be published.