আফ্রিদির মেয়েকে বিয়ে করার বাসনা পূরণ হয়েছে: শাহিন

পাকিস্তানি কিংবদন্তী ক্রিকেটার শহীদ আফ্রিদির মেয়ে আনশা আফ্রিদিকে বিয়ে করতে চলেছেন দেশটির তারকা পেসার শাহিন শাহ আফ্রিদি। ইতিমধ্যেই তাদের বাগদান সম্পন্ন হয়েছে। আফ্রিদির মেয়েকে ঘরের বউ করে আনতে প্রস্তাব নিয়ে গিয়েছিল শাহিনের পরিবার।

সে সময় মনে করা হচ্ছিল, পারিবারিকভাবেই দুই আফ্রিদির আত্মীয়তার বন্ধন তৈরি হতে যাচ্ছে। এ নিয়ে পাকিস্তানের সংবাদমাধ্যমগুলো শাহিনের কাছে জানতে চাইলেও খেলার বাইরে কোনো কথা বলেননি।

তবে হবু স্ত্রীকে নিয়ে এবার মুখ খুলতেই হলো শাহিনকে। আইসিসির বর্ষসেরা ক্রিকেটার জানিয়েছেন, তাঁর ইচ্ছেতেই পরিবার প্রস্তাব নিয়ে গিয়েছিল। শহীদ আফ্রিদি রাজি হওয়ায় শুধু বাগদানই সম্পন্ন হয়েছে।

কারণ, শাহিন-আনশা দুজনই নিজেদের কাজে ব্যস্ত। শাহিন ক্রিকেটে, আনশা লেখাপড়ায়। আফ্রিদির মেয়ের পড়াশোনা শেষ হলেই বিয়ে করবেন তাঁরা। তবে বিয়ে না হলেও প্রায়ই দুজনের দেখা হয়।

পাকিস্তানের টেলিভিশন চ্যানেল জিও নিউজের জনপ্রিয় অনুষ্ঠান ‘এক দিন জিও কে সাথ’-এর ঈদের বিশেষে পর্বে এসে শাহিন বলেছেন, ‘বুম বুম আফ্রিদির মেয়েকে বিয়ে করা আমার বাসনা ছিল। ইচ্ছেটা অনেক আগেই জেগেছিল। আলহামদুলিল্লাহ সেটা পূরণ হয়েছে।’

হবু স্ত্রী আনসার সঙ্গে সময় কাটানো প্রসঙ্গে ২২ বছর বয়সী পেসার বলেছেন, ‘এই তো কদিন আগেই ওর সঙ্গে দেখা করে এসেছি। আবারও দেখা হবে।’ নারী ভক্তদের নিয়ে আনশা ঈর্ষা বোধ করেন কি না—এ প্রশ্নে শাহিনের জবাব, ‘আমি ঠিক নিশ্চিত নই।

সে এমনটা অনুভব করে থাকতে পারে।’ অল্প বয়সে বাগদান সেরে ফেলায় অনেক তরুণীর হৃদয় ভেঙেছে কি না? শাহিন দিয়েছেন প্রকৃত প্রেমিকের মতো উত্তর, ‘আমি আমার হৃদয়কে খুঁজে পেয়েছি। সে-ই আমার জন্য যথেষ্ট।’

পাকিস্তানি কিংবদন্তী ক্রিকেটার শহীদ আফ্রিদির মেয়ে আনশা আফ্রিদিকে বিয়ে করতে চলেছেন দেশটির তারকা পেসার শাহিন শাহ আফ্রিদি। ইতিমধ্যেই তাদের বাগদান সম্পন্ন হয়েছে। আফ্রিদির মেয়েকে ঘরের বউ করে আনতে প্রস্তাব নিয়ে গিয়েছিল শাহিনের পরিবার।

সে সময় মনে করা হচ্ছিল, পারিবারিকভাবেই দুই আফ্রিদির আত্মীয়তার বন্ধন তৈরি হতে যাচ্ছে। এ নিয়ে পাকিস্তানের সংবাদমাধ্যমগুলো শাহিনের কাছে জানতে চাইলেও খেলার বাইরে কোনো কথা বলেননি।

তবে হবু স্ত্রীকে নিয়ে এবার মুখ খুলতেই হলো শাহিনকে। আইসিসির বর্ষসেরা ক্রিকেটার জানিয়েছেন, তাঁর ইচ্ছেতেই পরিবার প্রস্তাব নিয়ে গিয়েছিল। শহীদ আফ্রিদি রাজি হওয়ায় শুধু বাগদানই সম্পন্ন হয়েছে।

কারণ, শাহিন-আনশা দুজনই নিজেদের কাজে ব্যস্ত। শাহিন ক্রিকেটে, আনশা লেখাপড়ায়। আফ্রিদির মেয়ের পড়াশোনা শেষ হলেই বিয়ে করবেন তাঁরা। তবে বিয়ে না হলেও প্রায়ই দুজনের দেখা হয়।

পাকিস্তানের টেলিভিশন চ্যানেল জিও নিউজের জনপ্রিয় অনুষ্ঠান ‘এক দিন জিও কে সাথ’-এর ঈদের বিশেষে পর্বে এসে শাহিন বলেছেন, ‘বুম বুম আফ্রিদির মেয়েকে বিয়ে করা আমার বাসনা ছিল। ইচ্ছেটা অনেক আগেই জেগেছিল। আলহামদুলিল্লাহ সেটা পূরণ হয়েছে।’

হবু স্ত্রী আনসার সঙ্গে সময় কাটানো প্রসঙ্গে ২২ বছর বয়সী পেসার বলেছেন, ‘এই তো কদিন আগেই ওর সঙ্গে দেখা করে এসেছি। আবারও দেখা হবে।’ নারী ভক্তদের নিয়ে আনশা ঈর্ষা বোধ করেন কি না—এ প্রশ্নে শাহিনের জবাব, ‘আমি ঠিক নিশ্চিত নই।

সে এমনটা অনুভব করে থাকতে পারে।’ অল্প বয়সে বাগদান সেরে ফেলায় অনেক তরুণীর হৃদয় ভেঙেছে কি না? শাহিন দিয়েছেন প্রকৃত প্রেমিকের মতো উত্তর, ‘আমি আমার হৃদয়কে খুঁজে পেয়েছি। সে-ই আমার জন্য যথেষ্ট।’

About admin

Check Also

নতুন আইনঃ পুরুষদের ন্যূনতম দুটি বিয়ে না করলেই যাবজ্জীবন জেল হবে

আফ্রিকার ছোট্ট দেশ এরিত্রিয়ার সমস্ত পু’রুষকে ন্যূনতম দু’টি বিবাহ করতেই হবে,যা আইনে স্প’ষ্ট করে বলা …

Leave a Reply

Your email address will not be published.