ভো’টে জিতে বাড়ি বাড়ি গি’য়ে না’চছেন না’রী মে’ম্বার

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে ভোটারদের বাড়ি গিয়ে নেচে বিজয়ের আনন্দ উদযাপন করছেন মরজিনা আক্তার নামে এক নারী ইউপি সদস্য। নাচের ভিডিওটি ভাইরাল হয়েছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। ১ মিনিট ১১ সেকেন্ডের ওই ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে,

ভোটে বিজয়ী হয়ে বাড়ি বাড়ি গিয়ে বাদ্যযন্ত্রের তালে তালে নাচছেন মরজিনা আক্তার। তার গলায় ঝুলছে টাকার মালা। আর সঙ্গে নাচছেন স্থানীয়রাও। তিনি ২৮ নভেম্বর অনুষ্ঠিত ইউপি নির্বাচনে নবীনগরের জিনোদপুর ইউনিয়নে ৭, ৮ ও ৯ নম্বর ওয়ার্ডের সংরক্ষিত নারী সদস্য পদে লড়ে বিজয়ী হয়েছেন।

নবনির্বাচিত নারী ইউপি সদস্য মরজিনা আক্তার বলেন, আমাদের গ্রাম থেকে দীর্ঘদিন ধরে কোনো নারী সদস্য প্রার্থী বিজয়ী হতে পারেননি। এবার ভোটাররা আমাকে বিজয়ী করেছেন। সেজন্য তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাতেই এই আনন্দ আয়োজন।

জানা যায়, মরজিনা জিনোদপুর ইউনিয়নের বলিবাড়ি গ্রামের দুলাল মিয়ার স্ত্রী। ২৫ বছর ধরে বলিবাড়ি গ্রাম থেকে কেউ সংরক্ষিত নারী সদস্য পদে নির্বাচিত হননি। এবার এ গ্রাম থেকে মরজিনা আক্তার ভোটে দাঁড়িয়ে বিজয়ী হওয়ায় সবার মাঝে আনন্দ বিরাজ করছে।

নির্বাচনের পরদিন থেকে টানা দুই দিন বাড়ি বাড়ি গিয়ে বাদ্যযন্ত্রের তালে তালে নেচে আনন্দ উদযাপন এবং ভোটারদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন তিনি। অন্য গ্রাম থেকে মরজিনার সঙ্গে আরও সাতজন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে ভোটারদের বাড়ি গিয়ে নেচে বিজয়ের আনন্দ উদযাপন করছেন মরজিনা আক্তার নামে এক নারী ইউপি সদস্য। নাচের ভিডিওটি ভাইরাল হয়েছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। ১ মিনিট ১১ সেকেন্ডের ওই ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে,

ভোটে বিজয়ী হয়ে বাড়ি বাড়ি গিয়ে বাদ্যযন্ত্রের তালে তালে নাচছেন মরজিনা আক্তার। তার গলায় ঝুলছে টাকার মালা। আর সঙ্গে নাচছেন স্থানীয়রাও। তিনি ২৮ নভেম্বর অনুষ্ঠিত ইউপি নির্বাচনে নবীনগরের জিনোদপুর ইউনিয়নে ৭, ৮ ও ৯ নম্বর ওয়ার্ডের সংরক্ষিত নারী সদস্য পদে লড়ে বিজয়ী হয়েছেন।

নবনির্বাচিত নারী ইউপি সদস্য মরজিনা আক্তার বলেন, আমাদের গ্রাম থেকে দীর্ঘদিন ধরে কোনো নারী সদস্য প্রার্থী বিজয়ী হতে পারেননি। এবার ভোটাররা আমাকে বিজয়ী করেছেন। সেজন্য তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাতেই এই আনন্দ আয়োজন।

জানা যায়, মরজিনা জিনোদপুর ইউনিয়নের বলিবাড়ি গ্রামের দুলাল মিয়ার স্ত্রী। ২৫ বছর ধরে বলিবাড়ি গ্রাম থেকে কেউ সংরক্ষিত নারী সদস্য পদে নির্বাচিত হননি। এবার এ গ্রাম থেকে মরজিনা আক্তার ভোটে দাঁড়িয়ে বিজয়ী হওয়ায় সবার মাঝে আনন্দ বিরাজ করছে।

নির্বাচনের পরদিন থেকে টানা দুই দিন বাড়ি বাড়ি গিয়ে বাদ্যযন্ত্রের তালে তালে নেচে আনন্দ উদযাপন এবং ভোটারদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন তিনি। অন্য গ্রাম থেকে মরজিনার সঙ্গে আরও সাতজন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন।

About admin

Check Also

বিশ্বখ্যাত কেমব্রিজ ইউনিভার্সিটিতে শিক্ষক হিসেবে যোগ দিলেন ডা. তাসনিম জারা!

কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্লিনিক্যাল সুপাইরভাইজার (আন্ডারগ্রাজুয়েট) হিসেবে যোগ দিয়েছেন বাংলাদেশের চিকিৎসক ডা. তাসনিম জারা।= গত সোমবার …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *